পাসওয়ার্ড সুরক্ষিত রাখার জন্য ব্যবহার করুন কিপাস (KeePass) – যাদের পাসওয়ার্ড মনে থাকে না তারাও দেখতে পারেন

কম্পিউটার ও ইন্টারনেট দুনিয়ায় পাসওয়ার্ড একটি গুরুত্বপূর্ন জিনিস। একটু অসাবধান হলেই আপনার পাসওয়ার্ড পড়ে যেতে পারে হ্যাকার বা কোন খারাপ ব্যাক্তির হাতে। যাদের অনেক পাসওয়ার্ড তারা অনেক সময় পাসওয়ার্ড মোবাইলে বা নোটপ্যাডে লিখে রাখেন। অনেকে ডায়রিতেও লিখেন। কিন্তু এগুলো তেমন নিরাপদ না। যে কোন সময় যে কারও হতে পড়ে যেতে পারে। এই পাসওয়ার্ড নিরাপদ রাখার জন্য সুন্দর এবং ফ্রি সফটওয়্যার কিপাস (KeePass). এর সাইজ ২ মেগাবাইটেরও কম। এতে কোন ইনস্টলের ঝামেলা নেই। তাই আপনি একে পেনড্রাইভে করেও ব্যবহার করতে পারবেন। কোথাও এটি ফেলে আসলেও অসুবিধা নেই। কেউ এর থেকে আপনার পাসওয়ার্ড দেখাতে বা ব্যবহার করতে পারবেনা। সফটওয়ারটি ব্যবহার করার নিয়ম নিচে দেয়া হল তাহলে ভাল করে উপরের কথা গুলো বুঝতে পারবেন।
প্রথমে সফটওয়্যারটি এখান থেকে ডাউনলোড করুন। এবার ডাউনলোড করা ফাইলটি আনকম্প্রেস করে keePass চালু করুন।
এবার File মেনু থেকে New এ ক্লিক করুন। কিপাস এর জন্য একটি পাসওয়ার্ড দিন এবং OK তে ক্লিক করুন। আপনাকে শুধু এই পাসওয়ার্ডটি মনে রাখতে হবে। অন্য গুলো মনে রাখবে কিপাস।
এতে কোন পাসওয়ার্ড যোগ করতে কিপাস এর মেনুবারের নিচ থেকে নিচের মত আইকনটিতে ক্লিক করুন।
তাহলে নিচের মত একটি উইন্ডো আসবে। এখান কোন ঘরে কি লিখতে হবে তা নিচে একটি উদাহরন দিয়ে দেখানো হলঃ
Group: Network
Title: WordPress.com
User name: Hacker_Shohag
Password: ******* (পাসওয়ার্ড ঘর খালি করতে হলে Shift + Home চাপুন)
Repeat: ******* (পাসওয়ার্ড ঘর খালি করতে হলে Shift + Home চাপুন)
URL: http://www.wordpress.com
আপনি অন্য ঘর গুলো চাইলে পুরন করতে পারেন। আপনার এ পাসওয়ার্ডের জন্য একটি আইকন নির্দিষ্ট করতে Icon লেখার পাশের বাটনটিতে ক্লিক করুন। সব কাজ শেষ হলে OK বাটনে ক্লিক করে বের হয়ে আসুন।
এভাবে আপনার সব পাসওয়ার্ড এখানে সেভ করে রাখতে পারেন। পাসওয়ার্ড সেভ করতে Ctrl + S চাপুন। তারপর এর পাসওয়ার্ড ডাটাবেজ ফাইলটি কোথায় সেভ করবেন তা দেখিয়ে একটি নাম দিয়ে Save বাটনে ক্লিক করুন। কিপাস ডাটাবেজ ফাইলটিতে আপনার পাসওয়ার্ড গুলো এনক্রিপ্ট করে রাখবে। আপনি পেনড্রাইভে এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করতে চাইলে সফটওয়্যারটির সাথে সেভ করা ডাটাবেজ ফাইলটিও নিতে হবে। পরে এটি চালু করে File মেনু থেকে Open এ ক্লিক করে ডাটাবেজ ফাইলটি ওপেন করতে হবে। তখন শুরুতে দেয়া পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে ডাটাবেজ ফাইলটি চালু করতে হবে।
এখন কোন কিছুর ইউজার নেম বা পাসওয়ার্ড ব্যবহার করতে হলে কিপাস এর উইন্ডো থেকে সেই ইউজার নেম বা টাইটেলের উপর ক্লিক করুন। তারপর ইউজার নেম লাগলে নিচের ১নং লেখা আইকনটিতে ক্লিক করতে হবে। তাহলে এটি উইন্ডোজের ক্লিক বোর্ডে ১০ সেকেন্ডের জন্য ইউজার নেমটি কপি করে রাখবে। এ সময়ের ভিতর আপনাকে নির্দিষ্ট জায়গাতে অর্থাৎ যেখানে ইউজার নেম দেবেন সেখানে Ctrl + V দিয়ে ইউজার নেম পেস্ট করতে হবে। আবার পাসওয়ার্ড এর জন্য নিচের ২নং লেখা আইকনটিতে ক্লিক করে ১০ সেকেন্ডের মধ্যে নির্দিষ্ট জায়গাতে একই নিয়মে পাসওয়ার্ড পেস্ট করতে হবে।
এ সফটওয়্যারটি ব্যবহার করলে আপনাকে কষ্ট করে ইউজার নেম বা পাসওয়ার্ড কষ্ট করে লিখতে হবে না মনেও রাখতে হবে না। একটি পাসওয়ার্ড মনে রাখলেই হবে। আশা করি সফটওয়্যারটি আপনাদের উপকারে আসবে। ভাল লাগলে কমেন্ট করার চেষ্টা করবেন।

Advertisements

শক্ত পাসওয়ার্ড তৈরির কিছু ট্রিক্স (আপনার কাছে সহজ তবে হ্যাকারের কাছে মহাভারত)

ইন্টারনেট দুনিয়ায় পাসওয়ার্ড একটি পরিচিত শব্দ। আমরা প্রত্যেক দিন বিভিন্ন জায়গাতে পাসওয়ার্ড ব্যবহার করি। পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা হয় বিভিন্ন জিনিসকে সুরক্ষিত রাখতে। আর হ্যাকাররা তা ভাঙ্গার চেষ্টা করে। তাই যেমন তেমন পাসওয়ার্ড দেয়া আর না দেয়া একই হয়ে যায়। তাই শক্তিশালী পাসওয়ার্ড তৈরি করা উচিৎ। নিচে পাসওয়ার্ড তৈরির কিছু ট্রিক্স দিলাম।

১. পাসওয়ার্ড কম অক্ষরের দিবেন না। কারন বর্তমানে হ্যাকাররা আট অক্ষরের পাসওয়ার্ড ভাংতে পারে মাত্র ২ ঘন্টায়। তাই কমপক্ষে ১২ অক্ষরের পাসওয়ার্ড তৈরি করবেন। কারন হিসাব করে দেখা যায় ১২ অক্ষরের পাসওয়ার্ড ভাংতে হ্যাকারদের কয়েকশত বছর লাগবে।

২. পাসওয়ার্ডে যেন সব ধরনের উপাদান অর্থাৎ a-z, A-Z, !@#$%^&*(), 0-9 ইত্যাদি সব কিছু একটু একটু করে থাকে।

৩. সম্ভব হলে একেক একাউন্টের একেক পাসওয়ার্ড দিন।

৪. ব্রাউজারে কখনো পাসওয়ার্ড সেভ করে রাখবেন না।

৫. মোবাইল নাম্বার পাসওয়ার্ড হিসেবে ব্যবহার করবেন না।

৬. পাসওয়ার্ড কোথাও লিখে না রেখে মুখস্থ করার চেষ্টা করুন। (নিচে সহজে মনে রাখা যায় এবং শক্তিশালী পাসওয়ার্ড তৈরির পদ্ধতি দিয়েছি।)

৭. আপনি আপনার সব পাসওয়ার্ড রাখার জন্য কি-পাস (KeePass) ব্যবহার করেতে পারেন। এটি একটি ওপেন সোর্স, ফ্রি এবং পোর্টেবল সফটওয়্যার। এটি এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারেন।

৮. নিজের পাসওয়ার্ড কখনো অন্য কাউকে দিবেন না। তা যত অপ্রয়োজনীয়ই হোক না কেন।

৯. ওয়েব সাইটে বিশেষ করে ক্র্যাক, সিরিয়াল, কিগান, পর্নো ইত্যাদি যে সব সাইটে পাওয়া যায় সেগুলোতে না জেনে শুনে পাসওয়ার্ড না দেয়া ভাল। কারন এসব সাইটে হ্যাকাররা সবসময় ওতপেতে থাকে।

১০. যেখানে সেখানে পাসওয়ার্ড লিখে রাখবেন না।

১১. পাসওয়ার্ড মেকার ধরনের সফটওয়্যার ব্যবহার না করার চেষ্টা করবেন। কারন হতে পারে হ্যাকার ঐ সফটওয়্যারের ভিতর লুকিয়ে আছে।

মোটামুটি এগুলো পালন করলেই হবে।

নিচে সহজে মনে রাখা যায় কিন্তু শক্তি শালী পাসওয়ার্ড তৈরির কিছু পদ্ধতি দিলাম। এভাবে পাসওয়ার্ড তৈরি করলে আপনার কাছে তা সহজ লাগবে কিন্তু হ্যাকারদের কাছে তা মহাভারত লাগবে। এখানে দেখানো পদ্ধতিতে কমপক্ষে ১২ অক্ষরের পাসওয়ার্ড নিজে তৈরি করে নিবেন। কেন ১২ অক্ষর তা উপরে বলা হয়েছে। তাহলে শুরু করা যাক।

১. আপনি নিচের স্টাইলে সংখ্যা দিয়ে পাসওয়ার্ড তৈরি করতে পারেন।
a. 397168425
b. 37918246
c. 684239715
এগুলো দেখতে কঠিন মনে হলেও নিজে কিবোর্ডে বাম পশের কিপ্যাডে লিখে দেখুন। কি সহজ লাগছে!

২. আপনি কোন শব্দ বা নাম নিচের মত করে লিখতে পারেন।
a. ShOhAg
b. ShohaG
c. sHOHAg

৩. আপনি কোন নাম ও সংখ্যা এক সাথে নিচের মত করে লিখতে পারেন।
a. 397168425@ShOhAg.com
b. wWw.ShohaG_684297135.CoM
c. sHOHAg-371928465%(S)

৪. আপনি নিচের স্টাইলেও নাম, চিহ্ন ও সংখ্যা লিখতে পারেন।
a. 7BANG_la@desh.com
b. shoHAG@Yahoo!.753.com
c. 951&753@SHOhag.COm

৫. আপনি আপনার পাসওয়ার্ডে স্মাইল ব্যবহার করতে পারেন।
a. 183SHO_hag@;-).:-(
b. ;-DsHOHAg14563.asdf
c. :-(Bangla-751&Desh-953

৬. আপনি আপনার মোবাইল নাম্বার নিচের স্টাইলে লিখতে পারেন।
a. 0017123456788
b. Cow0017123456788_hEN
c. 017_1234@5678.EgG

উপরের পাসওয়ার্ড গুলো আবার দিয়েন না। উপরের পদ্ধতি গুলো যোগ করে নিজে একটি পাসওয়ার্ড তৈরি করুন। আপনি যদি এভাবে পাসওয়ার্ড তৈরি করে তা মুখস্থ রাখতে পারেন তা হলে তা সহজে কেউ হ্যাক করতে পারবে না। দেখুন পোষ্টটি কাজে লাগাতে পারেন কিনা। ভাল লাগলে কমেন্ট দেয়ার চেষ্টা করবেন।

ফোল্ডারে পাসওয়ার্ড দেয়ার জন্য একটি ছোট ও কার্যকর সফটওয়্যার

আমাদেরকে বিভিন্ন কারনে ফাইলকে লুকিয়ে রাখার বা পাসওয়ার্ড দিয়ে রাখার প্রয়োজন হয়। আনেক পাসওয়ার্ড সফটওয়্যার আছে। কিন্তু তা উইন্ডোজ রিইনস্টল করলে তা চলে যায় এবং তা দিয়ে পেনড্রাইভে পাসওয়ার্ড দেয়া যায় না। এসব সমস্যার সমাধান হল “File Protector”। এই সফটওয়্যারটি দিয়ে আপনি হার্ডড্রাইভ বা পেনড্রাইভ যে কোনটির ফাইলে পাসওয়ার্ড দিয়ে রাখতে পারবেন। এর সাইজ মাত্র ৬৮৫ কিলোবাইট। এটি ইনস্টল করার কোন ঝামেলা নেই। এটি একটি পোর্টেবল সফটওয়্যার। এর ব্যবহার বিধি খুব সহজ। এর ইউজার ইন্টারফেস সুন্দর এবং ইউজার ফ্রেন্ডলি।

এ সফটওয়্যারটি এখান থেকে ডাউনলোড করুন। ফোল্ডার লক করার জন্য এটিকে ফোল্ডারটির ভেতর কপি করুন এবং যে কোন পাসওয়ার্ড দিয়ে Protect বাটন ক্লিক করুন। এখন ফোল্ডার থেকে সফটওয়ারটি মুছে দিতে পারেন। আবার যখন পাসওয়ার্ড খুলতে হবে তখন সফটওয়ারটি আবার ফোল্ডারটিতে কপি করে চালু করুন তখন নিচের উইন্ডোটি দেখতে পাবেন।

এতে তিনটি রেডিও বাটন আছে। Virtual Disk সিলেক্ট করলে আপনার ফাইল গুলো একটি নতুন ড্রাইভে চালু হবে। Temporary সিলেক্ট করলে যে ফোল্ডারে এটি চালু করেছেন সে ফোল্ডারে আপনার ফাইল গুলো চালু হবে। এ দুটি সাময়িক ব্যবহারের জন্য। আপনি যদি প্রটেক্ট আর না করতে চান তাহলে Complete সিলেক্ট করুন। তারপর পাসওয়ার্ড দিয়ে Unprotect ক্লিক করুন। তবে সাবধান! এটির পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে আপনার ফাইল আর ফেরত পাওয়ার সম্ভাবনা নাই বললেই চলে। তবে এর প্রটেক্ট পদ্ধতি খুব শক্ত।

পাসওয়ার্ড না জেনেও উইন্ডোজ এক্সপিতে লগইন করা

অনেকে মনে করবেন এটি কেমনে সম্ভব বা মনে করবেন কোন হ্যাকিং টুল দিয়ে তা করতে হবে। কিন্তু সেগুলো কোনটাই না। এটি একরকম পদ্ধতি যার মাধ্যমে পাসওয়ার্ড না জেনে এক্সপিতে লগইন করা যায়। এর জন্য প্রথমে পাসওয়ার্ড আছে এমন কম্পিউটার চালু করতে হবে। লগইন উইন্ডো আসলে Alt + Ctrl + Delete একত্রে দুইবার চাপতে হবে। এতে উইন্ডোজ ২০০০ এর মত লগইন উইন্ডো আসবে। এতে User name বক্সে লিখুন Administrator এবং এন্টার চাপুন। তাহলে অ্যাডমিনিস্ট্রেটর হয়ে উইন্ডোজ লগইন হবে। এভাবে পাসওয়ার্ড ছাড়া লগইন করা যায়। এছাড়া কম্পিউটারকে সেফ মোডে চালু করলেও এই অ্যাডমিনিস্ট্রেটর ইউজারটি দেখতে পাবেন এবং তাতে ক্লিক করেও লগইন করতে পারেন। ভাবছেন তাহলে পাসওয়ার্ড দিয়ে লাভ কি? আসলে অপারেটিং সিস্টেম নতুন করে ইনস্টল করলে Administrator নামে একটি ইউজার অ্যাকাউন্ট সয়ংক্রিয় ভাবে তৈরি হয় এবং তা লুকনো অবস্থায় থাকে। এ অ্যাকাউন্টে কোন পাসওয়ার্ড দেয়া থাকে না। ফলে উপরের পদ্ধতিতে এ অ্যাকাউন্টে লগইন করা যায়। আপনি এ অ্যাকাউন্টে পাসওয়ার্ড দিয়ে রাখতে পারেন। এর জন্য প্রথমে সেইফ মোডে কম্পিউটার চালু করুন এবং অ্যাডমিনিস্ট্রেটর নামের অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করুন। এবার Start => Settings => Control Panel এ ক্লিক করুন এবং User Accounts এ ক্লিক করুন। এবার Administrator অ্যাকাউন্টে ক্লিক করে Create a password এ ক্লিক করুন এবং নতুন একটি পাসওয়ার্ড লিখে Create password বাটনটি ক্লিক করুন। তাহলে কেউ উপরের নিয়মে আর পাসওয়ার্ড ছাড়া লগইন করতে পারবে না। কোন সমস্যা হলে আমাকে ইমেইল করবেন।