লিংক

নির্দেশনা: ব্লগ পোষ্টের পূর্বে অবশ্যই করণীয় সমূহ

টেকমাস্টার ব্লগে আমার প্রকাশনাঃ

টেকমাস্টার ব্লগে নতুন প্রকাশনা (পোষ্ট) লিখার ক্ষেত্রে এখন থেকে যে সব নিয়ম পালন করতে হবে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে এ প্রকাশনায়।

http://techmasterblog.com/25478/tutorials

Advertisements

ফায়ারফক্স (Firefox) এবং থান্ডারবার্ড (Thunderbird) এর যে কোন ভার্সনে অজীবনের জন্য বাংলা সমস্যার সমাধান

আজ একটি মারাত্তক সমস্যার সহজ একটি সমাধান দেব। আমরা ইন্টারনেট ব্রাউজ করার সময় বেশী অসুবিধায় পড়ি বাংলা নিয়ে। যারা ইংলিশ নিয়ে ঘাটা ঘাটি করেন তাদের কথা ভিন্ন। কিন্তু আমার মত বাংলা প্রেমিকদের বাংলার জন্য অনেক কষ্ট করতে হয়। কিছু ছোটখাট ইতিহাস বলে আজকের পোষ্টটা শুরু করি।

ফায়ারফক্স ও থান্ডারবার্ডে ইউনিকোড যোগ হওয়ার পর বাংলা সমস্যা হলে শুধু অভ্র ইনস্টল করলেই ঠিক হয়ে যেত। পরে মজিলার নতুন ভার্সন ৪ বের করার পর থেকে আবার বাংলা নিয়ে সমস্যা তৈরি হল। দেখা গেল ওয়েব পেজে বাংলা দেখা গেলেও টাইটেল বারে ভাল করে বাংলা দেখা যেত না বা এখন নতুন ভার্সন গুলোতেও যায় না।

ফায়ারফক্সের অডঅনেও এখন বাংলা সমস্যা করে। যেমনঃ Echofon

আর থান্ডারবার্ডের নতুন ভার্সনে তো কোন ভাবেই ঠিক করে বাংলা আসে না।

তখন রাগ করে গেলাম উইনন্ডোজ সেভেনে। সেখানে বাংলাতে কোন সমস্যা হল না। কিন্তু সমস্যা হল এক্সপি থেকে উইন্ডোজ সেভেন ধির গতিতে কাজ করে। তাই বাধ্য হয়ে আবার এক্সপিতে ফিরে এলাম। এবার তো অবস্থা খারাপ, বাংলা সমস্যা দুরকরতে চাইলে স্পিডে কাজ করতে পারব না আবার স্পিডে কাজ করলে বাংলা সমস্যা নিয়েই থাকতে হবে 😦

এরকম জীবন-মরন অবস্থায় সামান্য গবেষনা করে একটি সমাধান বের করলাম। এটি ১০০% কার্যকর। আজ এ পদ্ধতিটিই আপনাদের সাথে শেয়ার করব।

এ পদ্ধতিটি ব্যবহার করতে হলে আপনার কম্পিউটারে অভ্র নতুন ভার্সন ইনস্টল থাকতে হবে। অভ্র যদি আপনার ইনস্টল করা না থাকে তাহলে এখান থেকে ডাউনলোড করে ইনস্টল করে ফেলুন।

এবার দেখা যাক পদ্ধতিটা কি! পদ্ধতিটা খুব সহজ। শুধু ফায়ারফক্স এবং থান্ডারবার্ডের কিছু ইনসাইড সেটিং পরিবর্তন করতে হবে। তাহলে কাজ শুরু করা যাক।

অভ্র ইন্সটল করে কম্পিউটার রিস্টার্ট করে নিন। তারপর ফায়ারফক্স চালু করুন। আমি এখানে ফায়ারফক্স ৬ এর ছবি দিয়েছি। এর অন্য ভার্সনেও একই ভাবে এ পদ্ধতিটি ব্যবহার করা যাবে।

ফায়ারফক্স চালু হলে নতুন একটি ট্যাব চালু করুন এবং অ্যাড্রেস বারে লিখুন about:config এবং লিখে Enter দিন।

তাহলে যে পেজ আসবে সেখান থেকে “I’ll be careful, I Promise!” বাটনে ক্লিক করুন।

তাহলে আপনার সামনে ফায়ারফক্সের সব সেটিংয়ের একটি তালিকা চলে আসবে। এবার Filter বক্সে লিখুন beng

তাহলে দেখবেন আপনার সামনে beng যুক্ত আছে এরকম কিছু সেটিংয়ের লিস্ট দেখা যাচ্ছে। এখান থেকে ছয়টি সেটিং পরিবর্তন করতে হবে। প্রথমে font.name-list.monospace.x-beng লেখাটি খুজে বের করে এর উপর ডাবল ক্লিক করুন। যে ইনপুট বক্সটি আসবে সেখানে লিখুন Siyam Rupali এবং লিখে OK বাটনে ক্লিক করুন।

তারপর এর পরের পাচটি সেটিং ও ডাবল ক্লিক করে Siyam Rupali লিখে পূরণ করুন।

সাবধানতার জন্য আমি নিচে ছবির সাথে ছয়টি সেটিংসের সবকটির নামও নিচে লিখে দিলাম।

font.name-list.monospace.x-beng
font.name-list.sans-serif.x-beng
font.name-list.serif.x-beng
font.name.monospace.x-beng
font.name.sans-serif.x-beng
font.name.serif.x-beng

সবগুলো সেটিং করা হয়ে গেলে ফায়ারফক্স একবার রিস্টার্ট করুন। তারপর দেখুন ঝকঝকে বাংলা 🙂

এবার আসা যাক থান্ডারবার্ডে। আমরা তো সহজেই ফায়ারফক্সের ইনসাইড সেটিং অ্যাড্রেসবারের মাধ্যমে বের করলাম। এবার বলুন তো থান্ডারবার্ডে তো অ্যাড্রেসবার নেই! এবার কি করবেন?

আমিও এ চিন্ততে পড়েছিলাম 🙂 কিন্তু পরে মনে পড়লে ‘সোজা আঙ্গুলে ঘি না উঠলে আঙ্গুল বাকা করতে হয়’ 🙂

তাই এবার আমরা আঙ্গুল বাকা করে লুকনো সেটিং বের করব 🙂 আপনাদের আঙ্গুল বাকাতে হবে না, ছোট একটি কাজ করতে হবে শুধু 🙂

প্রথমে থান্ডারবার্ড চালু করুন। তারপর Tools মেনু থেকে Options এ ক্লিক করুন। তারপর General ট্যাব থেকে “When Thunderbird launches, show the Start Page in the message area” তে টিক চিহ্ন দিন এবং Location বক্সে লিখুন About:config এবং লিখে OK বাটনে ক্লিক করুন। এবং থান্ডারবার্ড রিস্টার্ট করুন।

তাহলে দেখতে পাবেন থান্ডারবার্ডে নিচের দিকে ফায়ারফক্সে দেখা সেই চেনা মুখ 🙂 এবার আগের মতই একই কাজ করুন। একই জিনিস আর লিখতে ইচ্ছে হচ্ছে না, তাই আমি নিচে শুধু চিত্র গুলো দিলাম। সমস্যা হলে উপরে আরেকবার চোখ বুলিয়ে আসুন।

সেটিংগুলো ঠিক করা হয়ে গেলে আবার Tools থেকে Options এ ক্লিক করে General ট্যাব থেকে “When Thunderbird launches, show the Start Page in the message area” থেকে টিক উঠিয়ে OK দিয়ে থান্ডারবার্ড রিস্টার্ট করুন।

তারপর থান্ডারবার্ডেও দেখুন ঝকঝকে বাংলা 🙂

আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি পোষ্টটি সহজ করে লিখার জন্য। তারপরও বুঝতে কোন সমস্যা হলে বা অন্য কোন সমস্যা হলে কমেন্টে বলবেন। আজ এ পর্যন্তই।

ধন্যবাদ।

আপডেটঃ

নিচের কোন ফন্টটি আপনার ভালো লাগছে দেখুন তোঃ

সিয়াম রুপালী – ফন্ট | Siyam Rupali – Font

নির্মালা ইউআই – ফন্ট | Nirmala UI – Font

যদি সিয়াম রুপালী ফন্ট ভাল লাগে তাহলে উপরের দেয়া নিয়ম অনুসরণ করলেই হবে।
আর যদি নির্মালা ইউআই ফন্টটা ভাল লাগো তাহলে নিচের কাজ গুলো উপরের কাজ গুলোর সাথে অতিরিক্ত করুনঃ

প্রথমে নিচের লিঙ্ক থেকে “Nirmala UI (Win8 Full).zip” ফাইলটা ডাউনলোড করে এক্সট্রাক্ট করে ফন্ট ফাইল দুটোC:” বা “আপনার সিস্টেম ড্রাইভ\Windows\Fonts” ফোল্ডারে রাখুন।

http://www.mediafire.com/?q1cyc15lby311bb

দ্রষ্টব্যঃ যারা উইন্ডোজ ৮ ব্যবহার করছেন তাদের ফন্টটা ডাউনলোড করতে হবে না। ফন্টটা ডিফল্ট ভাবেই উইন্ডোজ ৮ এ দেয়া আছে 🙂

এবার উপরের নিয়মেই New Tab > about:config > Search “Beng” এ গিয়ে-

উপরের যে স্থান গুলোতে “Siyam Rupali” দেয়া হয়েছে সে স্থান গুলোতে একই ভাবে পরিবর্তন করে লিখুন “Nirmala UI“.

তাহলেই দেখুন ফন্ট পরিবর্তন হয়ে গেছে। এইটাও ফায়ারফক্স (যে কোন সংস্করণ) এবং থান্ডারবার্ড (যে কোন সংস্করণ) দুটোতেই কাজ করবে।

ধন্যবাদ।

বিঃ দ্রঃ এ ট্রিক্সটি ফায়ারফক্স এবং থান্ডারবার্ডের যে কোন সংস্করণে ১০০% কার্যকর।

▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬

আরো দেখতে পারেনঃ

বাংলা সমস্যা? সমাধান অভ্র


এ পোষ্টে প্রধানত অভ্রের সুবিধা/বৈশিষ্ট্য গুলো প্রশ্ন-উত্তর আকারে দেয়া হবে। প্রশ্ন-উত্তর আকারে দেয়ার কারণ হল বাংলা নিয়ে যে সব সমস্যা হয় সেগুলোর সব সমাধান যে অভ্রে আছে তা প্রমাণ করা। তাহলে পোষ্ট শুরু করা যাক।

১. ওয়েব সাইটে বাংলা লেখা দেখা যাচ্ছে না?
উঃ বাংলা না দেখার প্রধান কারণ আপনার অপারেটিং সিস্টেম ইউনিকোড সাপোর্ট করে না। এ সমস্যা সমাধানের জন্য অভ্র ইন্সটল করুন, কারণ অভ্রের সাথে একটি উপ সফটওয়্যার (একে অভ্রের অ্যাড-অন বলা যায়) দেয়া থাকে। এর নাম IComplex. এটি উইন্ডোজে ইউনিকোড সাপোর্টের জন্য যা যা লাগে সেগুলো ইন্সটল করে। সহজ কথায় বলতে গেলে আপনার অপারেটিং সিস্টেমকে ইউনিকোড সাপোর্টেড করে। ফলে আপনি বাংলা লেখা দেখতে পাবেন।

২. ওয়েব সাইটে বাংলা লেখা বেশী ছোট দেখা যাচ্ছে?
উঃ বাংলা লেখা ছোট দেখার কারণ হচ্ছে ওয়েব ব্রাউজারে ডিফল্ট হিসেবে যে ফন্ট ব্যবহার করা হয় তার সাইজ ছোট। সাধারণত ডিফল্ট হিসেবে Vrinda নামে একটি ফন্ট সিলেক্ট করা থাকে। এর আকার তুলনা মূলক ছোট। এ সমস্যা সমাধানের জন্য অভ্র ইন্সটল করুন। কারণ অভ্রের সাথে আরও একটি উপ সফটওয়্যার দেয়া আছে। এর নাম Font Fixer. এটি vrinda ফন্টের স্থানে Siyam Rupali নামে অভ্রের নিজস্ব একটি ফন্ট প্রতিষ্ঠাপিত করে। Siaym Rupali ফন্টটি তুলনা মূলক আকারে বড়। তাই ওয়েব সাইটে বাংলা লেখা বড় দেখা যাবে। (বিঃদ্রঃ ফায়ারফক্সে Ctrl + Plus চেপেও লেখা বড় করা যায়)

৩. আমি বাংলা লিখতে পারি না। বাংলা লেখার জন্য কোন সহজ পদ্ধতি আছে?
উঃ হ্যাঁ, অবশ্যই আছে। আপনি বাংলা লিখতে পারেন না। কিন্তু আপনি ইংরেজি দিয়ে বাংলা তো লিখতে পারবেন। তা পারলেই হবে। বাকি কাজ করবে অভ্র। অর্থাৎ আপনি ইংরেজিতে বাংলা লিখবেন আর অভ্র তাকে বাংলায় রূপান্তরিত করবে। যেমন আপনি যদি লিখেন “amar” আপনার লেখা উঠবে “আমার”। এ পদ্ধতিকে বলে Phonetic. অভ্র ইন্সটল করলে ডিফল্ট হিসেবেই এ সুবিধা পাবেন।

৪. আমি যে সব সফটওয়্যার ব্যবহার করি সেগুলো ইউনিকোড সাপোর্ট করে না। এখন কি দিয়ে বাংলা লিখব?
উঃ অভ্র দিয়ে লিখুন। অভ্র দিয়ে আপনি Unicode এবং ASCII/ANSI উভয় পদ্ধতিতে বাংলা লিখতে পারবেন। অভ্র দিয়ে ASCII/ANSI তে বাংলা লিখতে হলে লেখার সময় শুধু Shift + F12 চাপুন। আবার আপনি ANSI থেকে Unicode এ লিখতে চাইলে আবার Shift + F12 চাপুন। (বিঃদ্রঃ বিজয়ে বাংলা লিখতে যেমন Alt + Ctrl + B চাপতে হয় সেরকম অভ্রে বাংলা লিখার জন্য F12 চাপতে হয়।)

৫. আমার বাংলা লেখার সময় বানান ভুল হয়। বাংলা বানান ঠিক করার জন্য কোন স্পেল চেক করার সফটওয়্যার আছে?
উঃ হ্যাঁ। অবশ্যই আছে। এটি হচ্ছে অভ্র। আপনি অভ্র ইন্সটল করলে একটি বাংলা স্পেল চেকার পাবেন। এছাড়া অভ্র ইন্সটল করলে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডে বাংলা লিখলে ইংরেজি স্পেল চেক করার মত বাংলাও চেক করতে পারবেন। এর জন্য অভ্র ইন্সটল করে ওয়ার্ড চালু করুন। তাহলে দেখবেন Avro Bangla Tools নামে একটি মেনু/ট্যাব ওয়ার্ডে যোগ হয়েছে। এতে ক্লিক করল Start Spell check! নামে একটি অপশন পাবেন, এতে ক্লিক করে আপনি বাংলা স্পেল চেক করতে পারবেন।

অভ্র স্পেল চেকার

৬. আমার কিছু ইউনিকোডে লেখা ফাইল আছে। এগুলো ANSI করার জন্য কোন কনভার্টার আছে?
উঃ অবশ্যই আছে। এর নাম Unicode to Bijoy text converter. এটিও অভ্রের একটি উপ সফটওয়্যার। অভ্র ইন্সটল করে এর স্কিনের এ চিহ্নতে ক্লিক করে Unicode to Bijoy text converter এ ক্লিক করুন। তাহলে যে উইন্ডোটি আসবে সেখানে উপরের ঘরে ইউনিকোডে লেখা Text গুলো কপি-পেস্ট করে দিন। তারপর Convert to Bijoy encoding বাটনে ক্লিক করুন। তাহলে নিচের বক্সে আপনি আপনার লেখা ANSI তে দেখতে পাবেন।

ইউনিকোড থেকে বিজয় কনভার্টার

৭. আমি বর্ণনা/মুনির/ন্যাশনাল/প্রভাত এ লিখি। আমি কি অভ্রতে এ লেআউট গুলো ব্যবহার করতে পারব?
উঃ হ্যাঁ। অভ্রতে ডিফল্ট হিসেবে এ সব লেআউট দেয়া থাকে। আপনি অভ্রের স্কিনের এ চিহ্নতে ক্লিক করে আপনার পছন্দের লে আউট সিলেক্ট করে দিতে পারবেন।

৮. আমি ইউনিবিজয়/বিজয় লেআউট ব্যবহার করি। এ লেআউট গুলো কি অভ্রে আছে?
উঃ অভ্রের সাথে এগুলো দেয়া না হলেও আপনি এগুলো যোগ করে নিতে পারবেন। এ জন্য আপনাকে এখান থেকে Avro Layout (Bijoy and UniBijoy).zip নামে জিপ ফাইলটি ডাউনলোড করতে হবে। তারপর জিপ ফাইলটি আন জিপ করুন। সেখানে “UniBijoy.avrolayout” এবং “Bijoy.avrolayout” নামে দুটি ফাইল আছে। যারা ইউনিবিজয় ব্যবহার করেন তারা “UniBijoy.avrolayout” এ ডাবল ক্লিক করে OK তে ক্লিক করুন। আর যারা বিজয় লেআউট ব্যবহার করতেন তারা “Bijoy.avrolayout” এ ডাবল ক্লিক করে OK তে ক্লিক করুন। বিজয় লেআউটটি আসলে বিজয় লেআউটের সাথে ১০০% মিল আছে।

৯. বাংলা লেখার জন্য পোর্টেবল কোন সফটওয়্যার আছে?
উঃ অবশ্যই আছে। বাংলা লেখার জন্য অভ্রের পোর্টেবল ভার্সন ব্যবহার করতে পারেন। একে যে কোন পেনড্রাইভ বা রিমুভাল ড্রাইভে রেখে ব্যবহার করা যায়।

এগুলো ছাড়া বাংলা নিয়ে আর কোন সমস্যা হওয়ার কথা না। আর কোন সমস্যা হলে আপনি কমেন্টে লিখতে পারেন। উপরের সুবিধা ছাড়াও অতিরিক্ত কিছু সুবিধা আছে। সেগুলো হলঃ

ক. আপনি অভ্রতে ইচ্ছে মত লেআউট তৈরি করার সুবিধা আছে। আপনি Start Menu => Programs => Avro Keyboard এ গিয়ে Layout Editor এ ক্লিক করে আপনার ইচ্ছে মত লেআউট তৈরি করতে পারবেন।

খ. অভ্রের লেআউট দেখে যে কেউ মুগ্ধ হবে এটি গ্যারান্টি দিয়ে বলা যায়। এ ছাড়া সাথে আরও কিছু লেআউট দেয়া আছে। এগুলো দেখার জন্য অভ্রের স্কিনের এ চিহ্নতে ক্লিক করে Options এ ক্লিক করুন। তারপর Interface এ ক্লিক করে Select skin থেকে আপনি অন্য স্কিন সিলেক্ট করে দিতে পারবেন। এছাড়া অভ্রে নিজে নিজে স্কিন তৈরি করার সুবিধা আছে। আপনি Start Menu => Programs => Avro Keyboard এ গিয়ে Skin Designer এ ক্লিক করে আপনার ইচ্ছে মত স্কিন তৈরি করতে পারবেন।

গ. অভ্রের সাথে আকর্ষনীয় দুটি ফন্ট “সিয়াম রুপালি” এবং “কালপুরুষ” এর ইউনিকোড (Unicode) এবং আনসি (ANSI) উভয় ভার্সন একত্রে দেয়া থাকে।

এ পোষ্টটিতে অভ্রের সব বৈশিষ্ট্য তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। এখন আপনিই নির্ধারণ করুন – আপনি বাংলা লেখার জন্য অভ্র ব্যবহার করবেন না অন্য সফটওয়্যার ব্যবহার করবেন?

ডাউনলোড অভ্র
অভ্রের শেষ সংস্করণঃ অভ্র ৫.১

বিঃদ্রঃ এ পোষ্টটিতে অভ্রের প্রতিটি বৈশিষ্ট্য তুলে ধরা হবে এবং অভ্রের নতুন সংস্করণ এলে এ পোষ্টটি প্রয়োজন অনুযায়ী আপডেট করা হবে। পোষ্টে দেয়া সকল বৈশিষ্ট্য/সুবিধা অভ্রের নতুন সংস্করণে পাওয়া যাবে।

▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬

আরো দেখতে পারেনঃ

র য-ফলা (র‍্য) সমস্যার সমাধান

অভ্র ৪.৫.৩ ভার্সন দিয়ে অনেক প্রোগ্রামে (যেমনঃ নোটপ্যাড) র য-ফলা (র‍্য) লেখা যায় না। এটি অভ্রের সমস্যা না। এটি উইন্ডোজের সমস্যা। এর সমাধান দুটি।
এক. উইন্ডোজ এক্সপি আপডেট করে ভিসতা, সেভেন ইত্যাদি করা।
দুই. usp10.dll ফাইলকে আপডেট করা।
যারা উইন্ডোজ এক্সপিতে আছেন তারা দ্বিতীয় পদ্ধতিটি ব্যবহার করতে পারেন। এর জন্য প্রথমে এখান থেকে usp10.dll ফাইলটি ডাউনলোড করুন। এটি সরাসরি কপি করে পুরনো ভার্সন আপডেট করা যাবে না। এর জন্য Replacer নামে একটি সফটওয়্যার লাগবে। এটি এখন থেকে বা http://www3.telus.net/_/replacer/ থেকে ডাউনলোড করুন। ডাউনলোড করা শেষ হলে প্রথমে Replacer সফটওয়্যারটি চালু করুন। নিচের মত একটি উইন্ডো আসবে।
এবার “C:\WINDOWS\system32” ফোল্ডারে গিয়ে “usp10.dll” ফাইলটি খুজে বের করুন। এবার ফাইলটিকে Replacer উইন্ডোতে ড্র্যাগ করুন এবং Enter দিন। (সরাসরি system32 ফোল্ডারে যাওয়ার জন্য windows key + R চাপুন এবং “%windir%\system32\” লিখে Enter দিন।)
এবার আপনার কাছে কোন ফাইল দিয়ে রিপ্লেস করবেন তা চাওয়া হবে। এখানে ডাউনলোড করা “usp10.dll.rar” ফাইলটিকে এক্সট্রাক্ট করে নতুন “usp10.dll” ফাইলটি Replacer উইন্ডোতে ড্র্যাগ করুন এবং Enter দিন। এবার কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন। এ কাজটি করার সময় লক্ষ রাখবেন উইন্ডোজ ইনস্টল ডিস্ক যেন সিডি ড্রাইভে দেয়া না থাকে।

তথ্যসূত্রঃ এখানে

নতুন অভ্রের জন্য ইউনিবিজয় ও ৯৯.৯৯% বিজয় লেআউট

অভ্রের নতুন ভার্সন বের হয়েছে। অভ্র থেকে অনেক আগেই ইউনিবিজয় বাদ দেয়া হয়েছে। নতুন ভার্সনে অনেক কিছু যোগ করা হয়েছে এবং এটি এখন সব উইন্ডোজ সাপোর্ট করে। আর সবচেয়ে খুশির কথা হচ্ছে এটি দিয়ে এখন ASCI তে বাংলা লেখা যায়। আরো অনেক সুবিধা এতে যোগ করা হয়েছে। তাই নতুন ভার্সন ব্যবহার উচিৎ। তবে প্রশ্ন হল যারা ইউনিবিজয় ব্যবহার করতেন তারা কি করবেন? তাদের জন্য দুটি সমাধান আছে।
১. আগের অভ্র থেকে ইউনিবিজয় লেআউট কপি করে নেয়া। অভ্রের আগের ভার্সন ইনস্টল থাকা অবস্থায় C:\Program Files\Avro Keyboard\Keyboard Layouts ফোল্ডরে গিয়ে “UniBijoy.avrolayout” ফাইলটির অনুলিপি অন্য কোথাও তৈরি করতে হবে। এবার নতুন অভ্র ইনস্টল করে Program Files\Avro Keyboard\Keyboard Layouts ফোল্ডারে “UniBijoy.avrolayout” ফাইলটির অনুলিপিটি রাখতে হবে। (অভ্র 5.x ভার্সনে অভ্র ইনস্টল করে শুধু UniBijoy.avrolayout ফাইলটি ডাবল ক্লিক করে অভ্র রিস্ট্রার্ট করলেই হবে।)

২. এখান (লিঙ্কের জন্য নিচে আপডেট দ্রষ্টব্য) থেকে মাত্র ৪৫০ কিলোবাইটের জিপ ফাইলটি ডাউনলোড করে ইনস্টল করতে পারেন। এটি ইনস্টল করলে ইউনিবিজয় ও ৯৯.৯৯% বিজয় দুটি লেআউট একসাথে ইনস্টল হবে। ৯৯.৯৯% বিজয় লেআউটের বর্ননা নিচে দেয়া হয়েছে।

৯৯.৯৯% বিজয় লেআউটঃ যারা বিজয় থেকে অভ্রে এসেছেন বা আসতে চাচ্ছেন তাদের ইউনিবিজয়ে লিখতে সামান্য সমস্যা হতে পারে। সে সমস্যা দুর করার জন্য এ ৯৯.৯৯% বিজয় লেআউট। এখানে ৯৯.৯৯% বলা হচ্ছে কারন এখানে মাত্র দুটি কী পরিবর্তন করা হয়েছে। যে কী গুলো সচরাচর ব্যবহার করা হয় না। এগুলো হল বিজয়ে “^” কী তে ছিল যুক্তাক্ষরের ব এবং ` ও ~ এর স্থলে ছিল যথাক্রমে ‘ ও “। এগুলোর যায়গাতে এ লেআউটে দেয়া হয়েছে “^” কীতে “ঃ” এবং ` ও ~ এর স্থলে যথাক্রমে ‌ৰ ও ৱ। যুক্তাক্ষরের ব “্” দিয়ে তৈরি করা যায় এবং ‘ ও “ কীবোর্ডে দেয়া আছে। লেআউটটির স্ক্রিনশট নিচে দেয়া হল।

৯৯.৯৯% বিজয় লেআউট (বড় করে দেখার জন্য ছবির উপর ক্লিক করুন)

কীবোর্ড লেআউটটি এখান (লিঙ্কের জন্য নিচে আপডেট দ্রষ্টব্য) থেকে ডাউনলোড করে ইনস্টল করলেই হবে। আপনি বিজয় ব্যবহার করে এমন কাউকে অভ্রর সাথে এ লেআউটটি দিলে তার বিজয় থেকে অভ্রে চলে আসতে কোন কষ্ট হবে না।

ইনস্টল প্রক্রিয়াঃ প্রথমে জিপ ফাইলটি ডাউনলোড করে আনজিপ করুন। এবার “UniBijoy and Bijoy layouts for Avro Setup.exe” চালু করে যে ফোল্ডারে ডাউনলোড করেছেন সে ফোল্ডারে ইনস্টল করুন। এবার ফোল্ডার টিতে নতুন দুটি ফাইল তৈরি হবে। সেগুলো থেকে “UniBijoy and Bijoy layouts for Avro.exe” চালু করে ইনস্টল ক্লিক করুন।
আশা করি লেআউটটি ব্যবহার করে উপকৃত হবেন।

আপডেটঃ

নতুন অভ্রের জন্য ইউনিবিজয় এবং বিজয় লেআউটটি এখান থেকে ডাউনলোড করুন।

এবার জিপ ফোল্ডারটি আনজিপ করুন। তারপর বিজয় লেআউটের জন্য Bijoy.avrolayout এবং ইউনিজয় লেআউটের জন্য UniBijoy.avrolayout এ ডাবল ক্লিক করুন। তারপর অভ্র রিস্টার্ট করুন। কোন সমস্যা হলে কমেন্টে বলবেন। ধন্যবাদ।

▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬

আরো দেখতে পারেনঃ

বাংলা লেখার অসাধারন একটি সফটওয়্যার

বাংলা আমাদের মাতৃভাষা। বর্তমানে আমরা কম্পিউটারের প্রায় সব যায়গাতে বাংলা ব্যবহার করছি। বাংলা লেখার জন্য অনেকে বিজয় ব্যবহার করেন। আমি বিজয় বায়ান্নো ব্যবহার করেছিলাম, এর দাম মাত্র ১০০৳ ছিল তার কারনে। কিন্তু ব্যবহার করে দেখলাম এটি দিয়ে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ছাড়া অন্য কোথাও বাংলা লেখা যায় না। পারে বাংলা লেখার জন্য আরেকটি দারুন সফটওয়্যার পেলাম। এটিতে বিজয়ের চেয়ে বেশী সুবিধা থাকলেও এটি একদম ফ্রি। এর নাম অভ্র। এর ইন্টারফেসটিও খুব সুন্দর।
এটিতে বিভিন্ন পদ্ধতিতে বাংলা লেখা যায়। এগুলো হল ফোনেটিক, অভ্র ইজি, বর্ননা, জাতীয় এবং ইউনিবিজয়। “ফোনেটিক” হচ্ছে ইরেজী দিয়ে বাংলা লেখা পদ্ধতি। এপদ্ধতিতে ইংরেজীতে “amar” লিখলে বাংলায় “আমার” লেখা দেখা যাবে। যারা বাংলা টাইপিং এ নতুন তাদের জন্য এ পদ্ধতি। “অভ্র ইজি” হচ্ছে অভ্রর নিজস্ব লেআউট। “বর্ননা” দিয়েও সহযে বাংলা লেখা যায়। এর লেআউট এমন ভাবে সাজানো হয়েছে যাতে যে কেউ সহজে বিভিন্ন অক্ষর খুজে বের করতে পারে। যেমন J দিয়ে জ, ঝ ; R দিয়ে র, ৃ ইত্যাদি। “জাতীয়” হচ্ছে জাতীয় কী-বোর্ড লেআউট। “ইউনিবিজয়” মাধ্যমে প্রচলিত বিজয় কী-বোর্ডের লেআউট এ লেখা যাবে। তবে বিজয়ের সাথে এর ইউনিবিজয়ের লেআউটের একটু পার্থক্য আছে। এটি দিয়ে ইউনিকোড সাপোর্ট করে এমন সব প্রোগ্রামে বাংলা লেখা যাবে। এদের নিজস্ব কনভার্টারও আছে। যার মাধ্যমে আপনি বিজয়ে লেখা ফাইলকে ইউনিকোডে রূপান্তর করতে পারবেন। এটি দিয়ে যে কোন ওয়েব সাইটেও বাংলা লেখা যাবে। এর আরেকটি সুবিধা হল এর পোর্টেবল ভার্সন আছে। এতে একে যেকোন যায়গায় পেনড্রাইভের মাধ্যমে নিয়ে যেতে পারবেন।

অভ্র ডাউনলোড (১২.৩৮ মেগাবাইট)

অভ্র কনভার্টার ডাউনলোড (২.৩৯ মেগাবাইট)

পোর্টেবল অভ্র ডাউনলোড (৭.৬০ মেগাবাইট)

আনকম্প্রেস্ড করার জন্য উইনরার এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারেন।