উইন্ডোজ ৮ : avast! নিয়ে সব সমস্যার সহজ একটি ১০০% কার্যকর সমাধান!

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

avast! নিয়ে যারা উইন্ডোজ ৮ এ নিচের সমস্যা গুলোতে পড়েছেন তাদের জন্য সহজ একটি কয়েক ক্লিকের সমাধান আজ দেখাবো।

সমস্যা গুলো হলোঃ

নিচের সমাধানটি ১০০% কার্যকর!

সমাধানঃ দেখা যাক কি কি করতে হবেঃ

  • avast! চালু করুন। তারপর Security ট্যাব এ গিয়ে Antivirus এ ক্লিক করে Behavior Shield এ ক্লিক করুন।
    তারপর ডান পাশ থেকে Settings এ ক্লিক করুন। [চিত্র – ১]
চিত্র - ১

চিত্র – ১

  • এবার BEHAVIOR SHIELD SETTINGS উইন্ডোতে “Monitor the system for unauthorized modifications” থেকে টিক চিহ্ন উঠিয়ে দিন। [চিত্র – ২]

চিত্র – ২

কাজ শেষ! 🙂

 

Blank screen অবস্থায় avast! চালু করার পদ্ধতিঃ

  • Ctrl + Shift + Esc চাপুন; তাহলে টাস্ক ম্যানেজার (Task Manager)  চালু হবে।
  • এবার File থেকে Run new task এ ক্লিক করুন।

  • এবার Create new task উন্ডোতে Browse… এ ক্লিক করুন।

  • তারপর Browse উইন্ডো থেকে C বা আপনার সিস্টেম ড্রাইভ এ গিয়ে Program Files > AVAST Software > Avast ফোল্ডারে গিয়ে AvastUI.exe খুঁজে বের করে Open এ ক্লিক করুন।

  • এবার Create new task উন্ডোতে ফিরলে OK দিন।

  • তাহলেই avast! এর মেইন উইন্ডো চালু হয়ে যাবে। তারপর উপরের সমাধান অংশের কাজ গুলো করুন।

আশা করি আর কোন সমস্যা হবে না।

যদি আরো নতুন কোন সমস্যায় পড়েন বা avast! আর কোন সমস্যা করে উইন্ডোজ ৮ এ, তা জানাতে পারেন কমেন্টে। আশা করি তারও সমাধান পেয়ে যাবেন। 🙂

ধন্যবাদ।

•••••••••••••

আরো দেখতে পারেনঃ

Advertisements

উইন্ডোজ ৮ : avast! ইনস্টল করার পর PC settings চালু না হওয়া সমস্যার সমাধান

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ৮ বের করেছে। উইন্ডোজ ৮ এর দারুন গতি, মেট্রো ডিজাইন ইত্যাদির জন্য আপডেটেড ব্যবহারকারীরা এ উইন্ডোজ ব্যবহার করছেন।

avast! ১লা মার্চ ২০১৩ তে তাদের ৮ সংস্করণ বের করেছে। ফ্রি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার গুলোর ভিতর avast! সবচেয়ে এগিয়ে আছে। আর আমাদের মাতৃভাষা “বাংলা” যুক্ত হওয়া প্রথম এন্টিভাইরাস হচ্ছে avast! 🙂

এখন সমস্যা হলো উইন্ডোজ ৮ ইনস্টল করা কিছু পিসিতে avast! ইনস্টল করলে Change PC settings চালু হতে চায় না!

Change PC settings: উইন্ডোজ ৮ এর ডানে কোনে মাউস পয়েন্টার নিয়ে গেলে যে বার আসে, সেখানে নিচে থেকে Settings এ ক্লিক করলে আবার যে বারটি আসে, সেখানে একবারে নিচের অপশনটি হলো Change PC settings.

Change PC settings অপশন

Change PC settings অপশন

সমস্যাটির ফলে avast! প্রেমীরা বাধ্য হয়ে উইন্ডোজ ৮ ছাড়ছেন বা AVG, Avira ইত্যাদি avast! থেকে কম রেটিং এর ফ্রি এন্টিভাইরাস ব্যবহার করতে বাধ্য হচ্ছেন!

এ সমস্যাটির কোন অফিশিয়াল সমাধান avast! এখনো দেয়নি। তবে অনঅফিশিয়াল একটা সমাধান বের করা হয়েছে। সমাধানটি নিচে দেয়া হলো এবং এটি ১০০% কার্যকরঃ

প্রথমে avast! ইনস্টল করে নিচের কাজ গুলো করুন।

সমাধানঃ

avast! চালু করুন। তারপর Security ট্যাব এ গিয়ে Antivirus এ ক্লিক করে Behavior Shield এ ক্লিক করুন।
তারপর ডান পাশ থেকে Settings এ ক্লিক করুন। [চিত্র – ১]

চিত্র - ১

চিত্র – ১

এবার Behavior shield settings উইন্ডোতে বাম থেকে Trusted processes এ ক্লিক করুন। এবার ডান থেকে browse বাটনে ক্লিক করে C বা আপনার সিস্টেম ড্রাইভWindows ফোল্ডার থেকে ImmersiveControlPanel ফোল্ডারে গিয়ে SystemSettings.exe ফাইলটি খুঁজে বের করে Open এ ক্লিক করুন। [চিত্র – ২]

চিত্র - ০২

চিত্র – ২

তাহলে উইন্ডোটি দেখতে নিচের মত হবে। এবার OK ক্লিক করে বের আসুন। তাহলেই কাজ শেষ। [চিত্র – ৩]

চিত্র - ৩

চিত্র – ৩

এ পদ্ধতিটি ১০০% কার্যকর।

এবার চেষ্টা করে দেখুন Change PC settings চালু হয় কিনা। আশা করছি চালু হবে।

 

Blank screen অবস্থায় avast! চালু করার পদ্ধতিঃ

  • Ctrl + Shift + Esc চাপুন; তাহলে টাস্ক ম্যানেজার (Task Manager)  চালু হবে।
  • এবার File থেকে Run new task এ ক্লিক করুন।

  • এবার Create new task উন্ডোতে Browse… এ ক্লিক করুন।

  • তারপর Browse উইন্ডো থেকে C বা আপনার সিস্টেম ড্রাইভ এ গিয়ে Program Files > AVAST Software > Avast ফোল্ডারে গিয়ে AvastUI.exe খুঁজে বের করে Open এ ক্লিক করুন।

  • এবার Create new task উন্ডোতে ফিরলে OK দিন।

  • তাহলেই avast! এর মেইন উইন্ডো চালু হয়ে যাবে। তারপর উপরের সমাধান অংশের কাজ গুলো করুন।

আশা করি আর কোন সমস্যা হবে না।

আজ এ পর্যন্তই। কোন সমস্যা হলে কমেন্টে জানাবেন।

ধন্যবাদ।

•••••••••••••

আরো দেখতে পারেনঃ

উইন্ডোজ ৮ : avast! ইনস্টল করার পর Blank screen সমস্যার সমাধান

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ৮ বের করেছে। উইন্ডোজ ৮ এর দারুন গতি, মেট্রো ডিজাইন ইত্যাদির জন্য আপডেটেড ব্যবহারকারীরা এ উইন্ডোজ ব্যবহার করছেন।

avast! ১লা মার্চ ২০১৩ তে তাদের ৮ সংস্করণ বের করেছে। ফ্রি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার গুলোর ভিতর avast! সবচেয়ে এগিয়ে আছে। আর আমাদের মাতৃভাষা “বাংলা” যুক্ত হওয়া প্রথম এন্টিভাইরাস হচ্ছে avast! 🙂

এখন সমস্যা হলো উইন্ডোজ ৮ ইনস্টল করা কিছু পিসিতে avast! ইনস্টল করলে Blank screen সমস্যা দেখা দেয়।

Blank Screen সমস্যা হলো উইন্ডোজ ৮ চালুর পর লগ ইন করলে মেট্রো স্টার্ট চালু না হয়ে ডিসপ্লে কালো হয়ে থাকে। এ সময় মাউস পয়েন্টার দেখা যায় এবং Ctrl + Shift + Esc চেপে টাস্ক ম্যানেজার ওপেন করা এবং মাউস ব্যবহার করা যায়। কিন্তু কোন ভাবেই মেট্রো স্টার্ট এবং ডেস্কটপ চালু করা যায়না!

ফলে avast! প্রেমীরা বাধ্য হয়ে উইন্ডোজ ৮ ছাড়ছেন বা AVG, Avira ইত্যাদি avast! থেকে কম রেটিং এর ফ্রি এন্টিভাইরাস ব্যবহার করতে বাধ্য হচ্ছেন!

এ সমস্যাটির কোন অফিশিয়াল সমাধান avast! এখনো দেয়নি। তবে অনঅফিশিয়াল একটা সমাধান বের করা হয়েছে। সমাধানটি নিচে দেয়া হলো এবং এটি ১০০% কার্যকরঃ

প্রথমে avast! ইনস্টল করে রিস্টার্ট না করেই নিচের কাজ গুলো করুন। তা না হলে Blank screen সমস্যায় পড়ে যাবেন। আর যদি আপনি সমস্যার মধ্যেই থাকেন অর্থাৎ ইতিমধ্যে Blank screen সমস্যায় আছেন তারা কিভাবে অ্যাভাস্ট চালু করে নিচের কাজ গুলো করবেন তা পোষ্টের শেষে দেয়া হয়েছে।

সমাধানঃ

avast! চালু করুন। তারপর Security ট্যাব এ গিয়ে Antivirus এ ক্লিক করে Behavior Shield এ ক্লিক করুন।
তারপর ডান পাশ থেকে Settings এ ক্লিক করুন। [চিত্র – ১]

চিত্র - ১

চিত্র – ১

এবার Behavior shield settings উইন্ডোতে বাম থেকে Trusted processes এ ক্লিক করুন। এবার ডান থেকে browse বাটনে ক্লিক করে C বা আপনার সিস্টেম ড্রাইভWindows ফোল্ডারে গিয়ে explorer.exe ফাইলটি খুঁজে বের করে Open এ ক্লিক করুন। [চিত্র -২]

চিত্র - ২

চিত্র – ২

তাহলে উইন্ডোটি দেখতে নিচের মত হবে। এবার OK ক্লিক করে বের আসুন। তাহলেই কাজ শেষ। [চিত্র – ৩]

চিত্র - ২

চিত্র – ৩

এ পদ্ধতিটি ১০০% কার্যকর।

 

Blank screen অবস্থায় avast! চালু করার পদ্ধতিঃ

  • Ctrl + Shift + Esc চাপুন; তাহলে টাস্ক ম্যানেজার (Task Manager)  চালু হবে।
  • এবার File থেকে Run new task এ ক্লিক করুন।

  • এবার Create new task উন্ডোতে Browse… এ ক্লিক করুন।

  • তারপর Browse উইন্ডো থেকে C বা আপনার সিস্টেম ড্রাইভ এ গিয়ে Program Files > AVAST Software > Avast ফোল্ডারে গিয়ে AvastUI.exe খুঁজে বের করে Open এ ক্লিক করুন।

  • এবার Create new task উন্ডোতে ফিরলে OK দিন।

  • তাহলেই avast! এর মেইন উইন্ডো চালু হয়ে যাবে। তারপর উপরের সমাধান অংশের কাজ গুলো করুন।

আশা করি আর কোন সমস্যা হবে না।

আজ এ পর্যন্তই। কোন সমস্যা হলে কমেন্টে জানাবেন।

ধন্যবাদ।

•••••••••••••

আরো দেখতে পারেনঃ

জনপ্রিয় এন্টিভাইরাস অ্যাভাস্ট ব্যবহার করুন এখন সম্পূর্ন বাংলা ভাষায়

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

সবাই কেমন আছেন? আশা করি ভালই আছেন। আজ একটি দারুন খুশির খবর দেব। যারা ইন্টারনেট নিয়ে ঘাটাঘাটি করেন তারা জানেন ইন্টারনেটের অনেক জায়গাতেই এখন বাংলা ভাষার প্রচলন শুরু হয়েছে। ফেসবুক, গুগল, ইয়াহু ইত্যাদি সাইটে বাংলা যুক্ত হয়েছে। সফটওয়্যারে গেলে শুধু মাত্র ওপেনসোর্স কিছু সফটওয়্যারে বাংলা ভাষা যুক্ত আছে। এখন আমাদের জন্য খুশির খবর হল জনপ্রিয় এবং ফ্রি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার অ্যাভাস্ট -এ যুক্ত করা হয়েছে বাংলা ভাষা! এটিই প্রথম এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার যেখানে বাংলা ভাষা যুক্ত করা হলো!

অ্যাভাস্ট ডাউনলোড

avast! Translators Page এ যেতে ছবিতে ক্লিক করুন

বাংলা ট্রান্সলেশনের কাজটি করেছি আমি। আসলে কাকতালীয় ভাবে অ্যাভাস্ট ট্রান্সলেশন করার সুযোগটি পেয়ে যাই এবং কাজটি করেই ফেললাম 🙂 ।

যাই হোক, যেহেতু আমি ট্রান্সলেশন করেছি সেহেতু অ্যাভাস্টের বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ প্যাকটিতে বাংলাদেশী বাংলাকেই প্রধান্য দিয়েছি। অনেকেই বাংলা ইন্টারফেস ব্যবহার করতে চান না “ভুতুরে বাংলা” -র জন্য। যে বাংলা লেখা পড়ে সহজে বুঝা যায়না তাকেই “ভুতুরে বাংলা” নাম দিয়েছি আমি 😉 । বিশেষ করে ভারতীয় বাংলাতে প্রচলিত বাংলা স্টাইল আমাদের বুঝতে অসুবিধা হয়। অ্যাভাস্টের বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ প্যাকে “ভুতুরে বাংলা” বাদ দিয়েছি। আশা করি ইংরেজীর চেয়ে বাংলাকে কঠিন না লেগে সহজই লাগবে 🙂 । চলুন বাংলা ভাষা যুক্ত অ্যাভাস্ট এর কয়েকটি স্ক্রিনসট দেখে নিইঃ

অ্যাভাস্টের প্রধান ইন্টারফেস

অ্যাভাস্টের রিয়েল টাইম শিল্ড ইন্টারফেস

অ্যাভাস্টের আপডেট ইন্টারফেস

অটো-আপডেট নটিফিকেশন

ভাইরাস সনাক্ত নটিফিকেশন

নতুন ইন্টারনেট সংযোগের পর ফায়ারওয়াল সেটিং ইন্টারফেস

সয়ংক্রিয় ফায়ারওয়াল সেটিং নটিফিকেশন

এপ্লিকেশনের জন্য সয়ংক্রিয় ফায়ারওয়াল সেটিং নটিফিকেশন

ভাইরাস স্ক্যান ফলাফল ইন্টারফেস

তথ্য ইন্টারফেস

কেমন লাগল? আশা করি ভালই লেগেছে 🙂

চাইলে এখনই ডাউনলোড করে রাখতে পারেন অ্যাভাস্ট ফ্রি এন্টিভাইরাসঃ

অ্যাভাস্ট ডাউনলোড

চলুন এবার দেখা যাক কিভাবে অ্যাভাস্টে বাংলা ভাষা  সক্রিয় করবেন। অ্যাভাস্ট এর বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ প্যাক ডাউনলোড করার জন্য আপনার ইন্টারনেট কানেকশন অবশ্যই চালু থাকতে হবে। এটি মাত্র ১-২ মেগাবাইট ব্যান্ডউইথ খরচ করবে।

অ্যাভাষ্টে বাংলা ভাষা সক্রিয় করার জন্য সর্বনিম্ন ভার্সন হতে হবেঃ 7.0.1451

অ্যাভাস্টে বাংলা ভাষা সক্রিয় করাঃ

বাংলা ভাষা সক্রিয় করার জন্য ডেস্কটপ থেকে অ্যাভাস্টের সর্টকট এ ক্লিক করে অথবা অ্যাভাস্টের ট্রে আইকনে ক্লিক করে অ্যাভাস্ট ইন্টারফেস চালু করুন। এবার অ্যাভাস্ট ইন্টারফেসের এর ডান কোনা থেকে SETTINGS এ ক্লিক করুন।

এবার বাম থেকে Language এ ক্লিক করুন এবং তারপর ডান থেকে Install additional languages বাটনে ক্লিক করুন।

তাহলে নিচের মত যে উইন্ডো আসবে সেখান থেকে “বাংলা” কে টিক চিহ্ন দিয়ে OK তে ক্লিক করুন।

তারপর ডাউনলোড এবং ইনস্টল হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। (এ সময় অবশ্যই ইন্টারনেট সংযোগ লাগবে।)

নিচের স্ক্রিনটি আসলে বুঝবেন কাজ সম্পূর্ন হয়েছে। এবার Finish বাটনে ক্লিক করে SETTINGS উইন্ডোতে তে ফিরে যান।

এখন SETTINGS উইন্ডোতে Languages অংশ থেকে “বাংলা” সিলেক্ট করে OK বাটনে ক্লিক করে বের হয়ে আসুন। তাহলেই দেখবেন বাংলা ভাষা সক্রিয় হয়ে গেছে।

অ্যাভাস্ট ডাউনলোড

বাংলা ফন্টের আকার নিয়ে সমস্যা?

আমি উপরের স্ক্রিনসট গুলো উইন্ডোজ ৮ এ নিয়েছি। উইন্ডোজ ৮ এ বাংলার জন্য ব্যবহার করা হয়েছে Nirmala UI ফন্ট।

Nirmala UI: বাংলার ভাষার জন্য উইন্ডোজ ৮ পর্যন্ত যত ফন্ট মাইক্রোসফট তৈরি করেছে তার মধ্যে Nirmala UI ফন্টটিই বেষ্ট বলা যায়। এটি কেন বেষ্ট তা উপরের চিত্র গুলোতে বাংলা লেখা দেখেই আশা করি বুঝতে পারছেন। এটি বাংলার জন্য উইন্ডোজ ৮ এর ডিফল্ট ফন্ট হিসেবে থাকে।

কিন্তু উইন্ডোজ ৮ এর আগের ভার্সন গুলোতে বাংলা ভাষার জন্য দেয়া হয়েছিল Vrinda ফন্ট, যা সাধারন ফন্ট থেকে খুব ছোট এবং ব্যবহার করার উপযোগী নয় বললেই চলে। তার বিকল্প হিসেবে সিয়াম রূপালী ফন্টটি অভ্র দিয়ে ঠিক করা যায়। কিন্তু তা ভাল কাজ করে শুধু মাত্র ওয়েব পেজে। আপনি ফোল্ডারে বাংলা লিখুন বা কোন সফটওয়্যারের বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ প্যাক চালু করলে তা তেমন পরিষ্কার দেখাতে পারবেন না!

তাহলে কি এখন অ্যাভাস্ট বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ প্যাক শুধু উইন্ডোজ ৮ এর ব্যাবহার কারীরাই চালাবে!

না! যেখানে সমস্যা আছে সেখানে নিশ্চয় সমাধানও তো আছে! আমি সমস্যাটির একটি সিম্পল এবং ১০০% কার্যকরী একটি সমাধান দিচ্ছি। আমরা উইন্ডোজ ৮ এর নির্মলা ইউ আই ফন্টটিকে উইন্ডোজ এক্সপি, ভিস্তা এবং সেভেনে এর ডিফল্ট ফন্ট হিসেবে সেট করে দেব।

কাজটি করার জন্য Nirmala UI ফন্ট এবং Font Fixer সফটটি লাগবে।

ফন্টঃ

  • প্রথমে এখান থেকে Nirmala UI ফন্টটির জিপ ফাইলটি ডাউনলোড করুন।
  • এবার স্টার্ট মেনু থেকে Run এক ক্লিক করুন বা Windows Key + R চাপ দিয়ে Run উইন্ডো চালু করে Fonts লিখে Enter চাপ দিয়ে ফন্ট ফোল্ডার চালু করুন।
  • তারপর “Nirmala UI (Win8 RP).zip” জিপ ফাইলটি এক্সট্রাক্ট করুন, তাহলে Nirmala.ttf এবং NirmalaB.ttf নামের দুটি ফাইল দেখতে পাবেন। ফাইল দুটিকে Fonts ফোল্ডারে কপি-পেস্ট করে রাখুন।

Font Fixer:

এবার আপনার Font Fixer সফটওয়্যারটি লাগবে। এটি অভ্রের সাথেই দেয়া থাকে। তাই যাদের অভ্র আছে তাদের ডাউনলোড করা লাগবে না। যাদের নেই তারা এখান থেকে ছোট সফটটি ডাউনলোড করে নিন। ডাউনলোড করে Font Fixer টি চালু করুন। আর যারা অভ্র ব্যবহার করেন তারা C ড্রাইভ অথবা আপনার উইন্ডোজ যে ড্রাইভে সেটআপ করেছেন সে ড্রাইভে (যাকে সিস্টেম ড্রাইভ বলে) গিয়ে Program Files (৬৪ বিট অপারেটিং সিস্টেম হলে Program Files (x86)) থেকে Avro keyboard ফোল্ডারে গিয়ে Font Fixer.exe এ ডাবল ক্লিক করে Font Fixer চালু করুন।

এবার Font FixerFont Name বক্সে লিখুন “Nirmala UI” এবং তারপর Fix it বাটনে ক্লিক করুন। [বানান ঠিক করে লিখুন, নামের আগে পরে কোন স্পেস হবে না।]

এবার Restart Now বাটনে ক্লিক করে উইন্ডোজ রিস্টার্ট করুন। তাহলেই কাজ শেষ।

এখন আপনি উইন্ডোজ ৮ এর মতই পরিষ্কার বাংলা লিখা দেখতে পাবেন। [আমি নিজে XP এবং Windows 7 এ টেস্ট করে দেখেছি। সুতরাং কাজ করবেই। তারপরও সমস্যা হলে আমি তো আছিই 🙂 ]

উপরের কাজটি করে আপনি উইন্ডোজ Xp, Vista এবং 7 এ সব যায়গাতেই পরিষ্কার বাংলা দেখতে পাবেন। যেমনঃ

  • আপনি ফোল্ডার এবং ফাইলের নাম বাংলাতে লিখলে তা পরিষ্কার ভাবে দেখতে পাবেন।… ইত্যাদি।

বাংলা নাম যুক্ত দুটি ফাইল

অ্যাভাস্ট ডাউনলোড

অ্যাভাস্টের বাংলা ট্রান্সলেশন নিয়ে কোন সমস্যা বা মন্তব্য বা পরামর্শ থাকলে তা এখানে কমেন্টে বলতে পারেন, অথবা এখানে বলতে পারে, যাতে পরবর্তী ভার্সনে ট্রান্সলেশন আপডেট করার সময় সেগুলো ঠিক করতে পারি।

আর উপরের কাজ গুলো করতে কোন সমস্যা হলে কমেন্ট বক্স সব সময় খোলা। 🙂

পোষ্টটি শেয়ার করে খবরটি সবাইকে জানিয়ে দিতে ভুলবেন না যেন!

আজ এ পর্যন্তই। সবাই ভাল থাকবেন।

উইন্ডোজ ৮ এ ইন্টারনেট কানেকশন ছাড়াই ডটনেট ফ্রেমওয়ার্ক ইনস্টল

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

(পডেটঃ উইন্ডোজ ৮ এর স্ট্যাবল ভার্সনেও ডটনেট ফ্রেমওয়ার্ক ১, ২, ৩, ৩.৫ ইত্যাদি দেয়া নেই এবং তা নেট থেকে ডাউনলোড করে বা নিচের নিয়মে নেট ছাড়াই ইনস্টল করতে পারবেন।)

আপনারা নিশ্চই জানেন মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ৮ বের করার জন্য কাজ করছে। ইতোমধ্যে এর ডেভেলপার প্রিভিউ এবং কনজিউমার প্রিভিউ নামে দুটি বেটা ভার্সনও বের করা হয়েছে। এর মূল বৈশিষ্ট্যর মধ্যে রয়েছে মেট্রো স্টাইল। তা ছাড়া উইন্ডোজ ৮ এ আমার নিজের অভিজ্ঞতা থেকে যা দেখলাম স্টার্টআপ স্পিড, শাটডাউন স্পিড, সফটওয়্যার চালু হওয়ার স্পিড Overally সম্পূর্ন কম্পিউটারের স্পিড উইন্ডোজ ৭ এর তুলনায় অনেক বাড়ানো হয়েছে। যারা স্পিড কমে যাওয়ার ভয়ে ৭ চালাচ্ছেন না; XP তে পড়ে আছেন তারা উইন্ডোজ ৮ ব্যবহার করতে পারেন। একবার ব্যবহার করলে আর ছাড়তে চাইবেন না 🙂

কিন্তু আপনি এর কনজিউমার প্রিভিউ ভার্সনটি ইনস্টল করার পর একটা সমস্যায় অবশ্যই পড়বেন।(ডেভেলপার প্রিভিউ আমি ব্যবহার করি নাই; এতেও এসমস্যাটি থাকতে পারে) তা হল এতে আপনি ডটনেট ফ্রেমওয়ার্ক ইনস্টল করতে পারবেন না। যদিও ইন্টারনেট থাকলে তা ডাউনলোড করতে পারবেন (সাইজ মাশাল্লাহ ভালই 😉 )। কিন্তু আপনার উইন্ডোজ ৮ এর সিডিতেই যদি তা থাকে তাহলে কেন ব্যন্ডউইথ খরচ করে ডটনেট ইনস্টল করবেন!

সিডিতেই আছে তাহলে উইন্ডোজ সেটাপের সময় ইনস্টল হয়না কেন?

যেহেতু এ ভার্সন উইন্ডোজ ৮ এর বেটা ভার্সন So বাগ থাকাই স্বাভাবিক…

সিডি থেকে ইনস্টলের উপায় কি আছে?

হা আছে। তাই এখন নিচে বর্ননা করা হবে 🙂

উপরের সমস্যার সমাধানের জন্য নিচের ধাপ গুলো অনুসরণ করুনঃ

1. প্রথমে উইন্ডোজ ৮ এর ডিস্ক ডিভিডি ড্রাইভে প্রবেশ করান।

2. এবার স্টার্টমেনুতে যেতে যেখানে ক্লিক করতে হয় (বামে নিচে কোনে) সেখানে মাউস পয়েন্টার রেখে রাইট ক্লিক করুন; যে মেনু আসবে সেখান থেকে Command Prompt (Admin) এ ক্লিক করুন।

3. এবার Command Prompt উইন্ডোতে নিচের কোডটি কপি-পেষ্ট করুন। তবে কোডটিতে যেখানে :K: লেখা আছে সেখানে আপনার ডিভিডি ড্রাইভের লেটারটি দিতে হবে; উপরের ১ম ধাপের চিত্র থেকে বুঝতেই পারছেন আমার ডিভিডির ড্রাইভ লেটার K ; তাই এখানে :K: ব্যবহার করেছি। কপি-পেষ্ট বা কোডটি লেখা শেষে শুধু Enter চপুন এবং অপেক্ষা করুন।

dism.exe /online /enable-feature /featurename:NetFX3 /Source:K:\sources\sxs /LimitAccess

কাজ শেষ হতে কয়েক মিনিট সময় লাগবে। ৬০% এর পর মনে হবে বেজে আছে। কিন্তু চিন্তার কারন নেই একটু অপেক্ষা করুন, দেখবেন কাজ শেষ হয়ে গেছে 🙂

কাজ শেষ হলে উপরের চিত্রের মত “The operation completed successfully.” দেখাবে।

আজ এ পর্যন্তই। সামনে মাইক্রোসফট রিলিজ প্রিভিউ বের করবে। এতেও সমস্যাটা থাকতে পারে। যদি থাকে তাহলে এটাই অগ্রিম সমাধান 🙂

আল্লাহাফেজ…

[নোটঃ ডটনেট ফ্রেমওয়ার্ক হচ্ছে একধরনের সাহায্যকারী সফটওয়্যার যা ছাড়া অনেক সফটওয়্যার এমনকি অনেক গেমও চলতে পারে না। তাই এটি ইনস্টল করা অবশ্যই জরুরী।]

[পডেটঃ উইন্ডোজ ৮ এর স্ট্যাবল ভার্সনেও নিচের নিয়মে ডট নেট ফ্রেমওয়ার্ক ইনস্টল করতে পারবেন।]

কোন কনভার্টার ছাড়াই মুভি ফাইল জোড়া লাগানোর পানির চেয়েও সহজ উপায়

আজ অসাধারন একটা সাধারন জিনিস নিয়ে আলোচনা করব 🙂 । আশা করি ভাল লাগবে। তাহলে শুরু করা যাক।

ধরুন আপনার কম্পিউটারে কোন মুভি ফাইল আছে। এতে দুটি ফাইল আছে। একটি প্রথম অংশ এবং আরেকটি বাকী অংশ। এখন আপনি যদি ফাইল দুটি জোড়া লাগাতে চান তাহলে সাধারন ভাবে আপনাকে কনভার্টারের সাহায্য নিতে হবে। কিন্তু কোন কনভার্টার ছাড়া অর্থাৎ মুভি ফাইল কনভার্ট না করেও একসাথে যুক্ত করা যায়। একাধিক ফাইল একসাথে যুক্ত করাকে মার্জ (Marge) বা কম্বাইন (Combine) বলে।

কনভার্টার ছাড়া মুভি বা ভিডিও ফাইল মার্জ করার জন্য একটি ওপেন সোর্স ও ফ্রী ছোট একটি সফটওয়্যার লাগবে। যার নাম সবার জানার কথা। এর নাম সেভেন জিপ (7-Zip)।

অবাক হলেন! কম্প্রেস করার সফট দিয়ে আবার ভিডিও ফাইল মার্জ করা যায় ক্যামনে! যায়। এটা আসলে একটা ছোট ট্রিক্স। যা দিয়ে আপনি MKV, VOB ইত্যাদি মুভি ফাইল মার্জ করতে পারবেন। 7-Zip সফটওয়্যারটি এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

7-Zip দিয়ে মার্জ করার নিয়ম নিচে বিস্তারিত দেখানো হলঃ

প্রথমে যে ফাইল গুলো মার্জ করবেন তাদের নাম পরিবর্তন করতে হবে। নাম পরিবর্তন করার নিয়ম হলঃ

  • ফাইল গুলোর একই নাম হতে হবে।
  • এবং ফাইল গুলোর নামের শেষে পর্যায়ক্রমিক ভাবে .001, .002, .003 ইত্যাদি যোগ করতে হবে।

যেমনঃ ধরি কোন একটা মুভির নাম S.one 🙂 । এটি একটি VOB ফরমেটের মুভি। এর দুটি অংশ মার্জ করতে হবে। তাহলে প্রথম ফাইলেন নাম দিতে হবে S.one.vob.001 এবং ২য় অংশের নাম দিতে হবে S.one.vob.002 । যদি এতে ৩য় কোন ভাগ থাকত তাহলে তার নাম দিতে হত S.one.vob.003 । নিচের চিত্রে একটা উদাহরন দেয়া হয়েছে।

আশা করি রিনেম করার ব্যপারটা বুঝতে পেরেছেন।

৯৯ ভাগ কাজ শেষ। এখন শুধু তিনটা ক্লিক বাকী আছে। আপনাকে এবার প্রথম ফাইলটার অর্থাৎ যেটার শেষে .001 আছে সেটার উপর মাউস পয়েন্টার রেখে রাইট বাটন ক্লিক করে 7-Zip থেকে Extract Here এ ক্লিক করতে হবে। তাহলেই 7-Zip মুভি ফাইল গুলোকে মার্জ করে ফেলবে।

▼▼▼▼▼

▼▼▼▼▼

উপরের চিত্রে ব্ল্যাক বর্ডার দেয়াটা মার্জ হওয়ার পর নতুন ফাইল। বুঝতে সমস্যা হলে এখান থেকে 3.41 মেগাবাইটের ভিডিওটা ডাউনলোড করে দেখতে পারেন। ইউটিউবে দেখতে পারেন এখান থেকে।

7-Zip দিয়ে মুভি ফাইল মার্জ করার জন্য অবশ্যই ফাইল গুলো একই মুভির এবং অবশ্যই একই ফরমেটের হতে হবে। আমি নিজে MKV এবং VOB ফাইল মার্জ করে সফল হয়েছি। অন্য কোন ফরমেট মার্জ না হলে আমি দায়ী থাকব না 🙂

সাধারনত একাধিক মুভি যুক্ত ডিভিডি থেকে মুভি আলাদা করলে দেখা যায় একটা করে মুভির দুই থেকে চার,পাচটা ভাগ পর্যন্ত পাওয়া যায়। এসব মুভি মার্জ করতে উপরের পদ্ধতি ১০০% কার্যকরী। এছাড়া অনেক ডাউনলোড সাইট থেকে MKV মুভি ডাউনলোড করলে একাধিক ফাইল থাকলে এ পদ্ধতিতে তা মার্জ করতে পারবেন।

আশা করি ট্রিক্সটি কাজে লাগবে। কোন সমস্যা হলে কমেন্টে বলবেন। কষ্ট করে পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

নতুন স্টাইলে চালান ফেসবুক – ছোট একটি ট্রিক্স (আপডেট)

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

অনেক দিন পর আবার পোষ্ট করলাম। আসলে পোষ্ট করার জন্য কোন বিষয় পাই না। যেটা মাথায় আসে দেখি কেউ না কেউ তা নিয়ে পোষ্ট দিয়ে দিয়েছে। 😦

সে কথা যাক। আজ আপনাদের সাথে নতুন একটা জিনিস শেয়ার করব( জিনিসটা হয়ত পুরনো কিন্তু আশা করি বেশীর ভাগের কাছে তা নতুন হবে 🙂 ) কথা আর না বাড়াই; নিচের ছবি গুলো দেখুন তো, নতুন লাগে? না পুরনো?

ফেসবুকের মেইন পেজঃ

ফেসবুকের সব অপশনঃ

নোটিফিকেশন উইন্ডোঃ

ম্যাসেজ উইন্ডোঃ

কি কেমন লাগছে দেখতে? যদি ভাল না লাগে তাহলে আর না পড়েলেও হবে। আর যদি ভাল লাগে তাহলে পড়তে থাকুন। 🙂

এটি আসলে iPhone / iPad এ ফেসবুকের রূপ। তবে আপনি ডেস্কটপে বসেই এ রূপ উপভোগ করতে পারবেন 🙂

তার জন্য বড় কোন কাজ করতে হবে না। শুধু চেনা একটা ব্রাউজার ডাউনলোড করতে হবে। ব্রাইজারটির নাম হল সাফারি (Safari) । ব্রাউজারটি এখান থেকে ডাউনলোড করুন। এবার ইন্সটল করুন। তারপর চালু করুন। এবার এড্রেস বারে লিখুন – m.facebook.com এবং Enter দিন। এবার ফেসবুকে লগইন করুন আর উপভোগ করুন ফেসবুকের এ নতুন রূপ। আপনার বন্ধুকে ফেসবুকের এ নতুন রূপ দেখিয়ে পার্টও মারতে পারবেন 🙂

আর যদি ফেসবুকের অপশন গুলো খুজে না পান তাহলে নিচের চিত্রে গোল করে দেয়া চিহ্নটি খুজে ক্লিক করলেই হবে।

এক্সট্রা কারিকুলাম এক্টিভিটি

আমি ব্যবহার করে যা দেখেছি তাতে বলা যায় যারা অপেরা ব্রাউজার ব্যবহার করেন তারা সাফারি ব্রাউজারটির ব্যবহার করে দেখতে পারেন। ফায়ারফক্স ব্যবহার করীরা 2nd ব্রাউজার হিসেবে এটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন। বোনাস হিসেবে সাফারি ব্রাউজারের জন্য Adblock অড-অনস টির লিঙ্ক দিলাম।

লিঙ্কঃ Adblock for Safari

আজ এ পযন্তই। ধন্যবাদ।

আপডেটঃ

সাইফুল ইসলাম ভাইয়ের থেকে জানলাম এটা ফেসবুকের টাচ ভার্সন। এর ঠিকানাঃ touch.facebook.com . এ ঠিকানা দিয়ে যে কোন ব্রাউজার থেকেই এর স্বাদ পাওয়া যাবে। কষ্ট করে সাফারি ব্রাউজার ডাউনলোড করতে হবে না 🙂