দেশের প্রথম, সব চেয়ে বড় এবং সর্বোচ্চ সুবিধা যুক্ত অফলাইন ইউনিকোড ভিত্তিক বাংলা অভিধান তৈরি করা হচ্ছে – আপনার মতামত দিন

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

বিঃ দ্রঃ স্বাধীনের নতুন ভার্সন বের করা হয়েছে। নতুন ভার্সন সম্পর্কে জানতে এবং ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন

সবাই কে সালাম জানিয়ে আজকের পোষ্ট শুরু করছি। আজ আমার নতুন প্রোজেক্ট সম্পর্কে লিখব। এটি আমার চতুর্থ প্রোজেক্ট এবং অন্য গুলোর চেয়ে সবচেয়ে বড় এবং চ্যালেন্জ পূর্ন। চ্যালেন্জ পূর্ন কেন তা নিচে পড়লেই জানবেন। টাইটেল থেকে এতক্ষনে নিশ্চই বুঝে গেলেছ এবারের প্রোজেক্ট হচ্ছে বাংলা অভিধান।

এত কিছু থাকতে বাংলা অভিধান কেন?

বাংলা ডিকশনারী তৈরি করার পেছেনে অনেক কারন আছে। যেমনঃ বর্তমানে যত গুলো অফলাইন ডিকশনারী আছে সেগুলোতে শব্দের অভাব, একেকটাতে এককেক সুবিধা- কোনটাতে সার্চ থাকলে উচ্চারন নেই, উচ্চারন থাকলে শব্দ নেই, শব্দ থাকলে সার্চ সিস্টেম ঠিক নেই ইত্যাদি ইত্যাদি। তারপর আমার জানা মতে ২০০৫ সালের পর আর কোন ডিকশনারী তৈরি করা হয়নি এবং জানামতে এখন পর্যন্ত ইউনিকোড সাপোর্ট যুক্ত ফ্রি কোন ডিকশনারী বের হয়নি। আমি এখানে ডিকশনারি সফটওয়্যার অর্থাৎ অফলাইন ডিকশনারির কথা বলছি। কারন অনলাইনে ইউনিকোড যুক্ত অনেক গুলো ডিকশনারি আছে।

এবার দেখা যাক ২০১১ পর্যন্ত প্রচলিত সব ডিকশনারি সম্পর্কে কিছু তথ্য। এখানে অফলাইন ও অনলাইন উভয় ডিকশনারি দেয়া আছে।

অফলাইন বাংলা অভিধান সমূহঃ [ওয়ার্ড সংখ্যা (প্রায়), ডাউনলোড লিঙ্ক, কম্প্রেস্ড করা সাইজ(প্রায়)]

  1. Bangla Dictionary v3 by Wali [18366, ডাউনলোড, ২.৫০ মেগাবাইট]
  2. Quick Dictionary 2.1.7 [20962, ডাউনলোড , (আমার কাছে কুইক ডিকশনারির যে কপি আছে তার সাইজ ১০৬ মেগাবাইট; তবে আমি এর যে লিঙ্ক পাইছি তার সাইজ ১২৮ মেগাবাইট। এটা অন্য কোন ডিকশনারি হলে আমার কিন্তু দোষ দিবেন না 🙂 ]
  3. Shoshi English to Bangla Dictionary 1.2 [21251, ডাউনলোড , ৮৯ মেগাবাইট]
  4. Technosys Bangla Dictionary 1.0.0 [16970 – শুধু শব্দার্থ; 8664 – উচ্চারন + পদ সহ, ডাউনলোড , ৩৭ মেগাবাইট]
  5. Systech Dictionary 1.0 [60,000+ Bengali and 25,000+ English Word – আমি নিশ্চিত না, তবে তাদের সাইটে এটাই লেখা আছে, ডাউনলোড,  ১৩ মেগাবাইট]
  6. Quick Dictionary XP [আমি নিজে ব্যবহার করে দেখিনি তাই শব্দ সংখ্যা বলতে পারছি না, ডাউনলোড (Pass: doridro.com), ১০৬ মেগাবাইট]

আর যদি টাকা থাকে তাহলে এটা ট্রাই করে দেখতে পারেন- http://www.lingvosoft.com/Bengali-items/

অনলাইন বাংলা ডিকশনারী সমূহঃ

  1. অনলাইন বাংলা অভিধান – সিসটেক (http://www.bangladict.org)
  2. অভিধান – অংকুর (http://www.bengalinux.org/english-to-bengali-dictionary/)
  3. সংসদ বাংলা অভিধান (http://dsal.uchicago.edu/dictionaries/biswas-bangala/ or http://dsal.uchicago.edu/dictionaries/biswas-bengali/)
  4. অ্যারে বাংলা ডিকশনারি (http://ovidhan.org or http://ovidhan.org/bangla.php)
  5. বাংলা অভিধান – এভারগ্রিনবাংলা.কম (http://www.bangladictionary.org/)
  6. বাংলা ডিকশনারী – বিডি ওয়েব গাইড.কম (http://www.bdwebguide.com or http://www.banglacode.com/Bengali-English/index.php)
  7. বিডিওয়ার্ড ডিকশনারী – (http://www.bdword.com/)
  8. উইকি অভিধান (http://bn.wiktionary.org)
  9. ভার্চুলাম বাংলাদেশ ডিকশনারি (http://www.virtualbangladesh.com)
  10. বাঙ্গালি ডিকশনারি (http://www.bengali-dictionary.com)

আরো কিছু অনলাইন বাংলা ডিকশনারী থাকতে পারে। আমি খোজাখুজি করে এগুলোই পেয়েছি।

এখনে আপনাদের ডাউনলোড লিঙ্ক দেয়ার পিছনে কারন হল আপনারা এগুলো ব্যবহার করে দেখুন এগুলোতে কি নেই যা আপনার প্রয়োজন এবং আমাকে তা জানান। আপনাদের ফিডব্যাকই আমার নতুন প্রোজেক্টকে হয়তো অনেক এগিয়ে নিয়ে যাবে।

এবার প্রজেক্টের ভিতরের কিছু কথা বলিঃ

আমরা ডিকশনারির জন্য এখন পর্যন্ত ‘বাংলা একাডেমির ইংলিশ-বাংলা ডিকশরারি (সেকেন্ড এডিশন)’ সিলেক্টে রেখেছি। আমি অনেকের মতামত নিয়ে এটার প্রতিই বেশী ভোট পেয়েছি।

এতে কি কি শুবিধা থাকতে পারে?

আপনারা আশা করতে পারেন যে এতে উপরের ডিকশরারি গুলোর সব সুবিধা গুলো থাকবে। কিন্তু আরো কি কি থাকতে পারে তা এখন সম্পূর্ন আপনাদের উপর নির্ভর করছে।

ও ভুলেই গেছি, আমার ডিকশনারির নামই তো এখনো বলিনি। নতুন এ ডিকশনারির নাম হচ্ছে স্বাধীন বাংলা অভিধান।

আজ আমি আপনাদের মাঝে এর আলফা ভার্সন ছেড়ে দেব। তবে এতে যে ডাটাবেজ থাকছে তা সিসটেক ডিকশনারি থেকে ধার করা। উপরের অফলাইনের ৫ নাম্বার ডিকশানারিটা। এখন আপনাদের সারা দেয়ার উপর নির্ভর করছে এর ডাটাবেজের কাজ শুরু করা হবে কি হবে না। কারন, আমি প্রথমেই কিন্তু এখন পর্যন্ত প্রচলিত সব ডিকশনারির লিঙ্ক সহ দিয়েছি। যাতে আপনারা সেগুলো ব্যবহার করতে পারেন। আর সেগুলো ব্যবহার করে যদি আপনারা সন্তুষ্ট থাকেন তাহলে তো নতুন বানানোর প্রশ্নই আসে না। আমার জানা মতে সর্ব শেষ অফলাইন ডিকশনারি ২০০৫ এ তৈরি। তারপর আর কোন ডিকশরারি তৈরি হয়নি। এখন আমার মনে হয়েছে ২০১২ তে এসে আসলেই নতুন একটি ডিকশনারি প্রয়োজন। তাই আমি ডিকশনারির কাজ হাতে নিয়েছি। আমি চাচ্ছি এমন একটি ডিকশনারি বানাতে যা বর্তমানের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারে। আর তার জন্য প্রয়োজন আপনাদের সাজেশন + ফিডব্যাক।

কি কি থাকছে আলফা ভার্সনে?

আলফা ভার্সনে ইংলিশ এবং বাংলা সার্চের সুবিধা থাকছে। সার্চ করার সাথে সাথে চাইলে যে কোন শব্দের উচ্চারনও শুনতে পারবেন। সাথে থাকছে সার্চ এবং উচ্চারন শুনার সুবিধা সহ ১০০০+ কমন এবং কম্পিউটার বেজড অ্যাব্রিভিয়েশন। সাইন্সের ছাত্রদের জন্য উচ্চারন সহ গ্রিক লেটার টেবল যুক্ত আছে এতে। বাংলা সার্চ করার জন্য অভ্র বা বিজয় কোনটাই লাগবে না। ইউনিবিজয় ইন্ট্রিগ্রেটেড মানে ইউনিবিজয় কিবোর্ড যুক্ত করা আছে। তবে যারা অভ্র বা বিজয় দিয়ে লেখেন তারাও এতে বাংলা লিখতে পারবেন কোন সমস্যা ছাড়াই (অবশ্যই ইউনিকোড বাংলা)। [বিঃদ্রঃ উইন্ডোজ এক্সপিতে টেকনিক্যাল সমস্যা থাকায় অভ্র দিয়ে বাংলা লিখতে সমস্যা হতে পারে। এ সমস্যা দুর করার জন্য অভিধান চালু করে সেটিং এ ক্লিক করে অভ্র সম্পূর্ন বন্ধ করে ‘অভ্র সাপোর্ট চালু করুন’ বাটনে ক্লিক করুন। তাহলে অভ্র দিয়ে নিশ্চিন্তে বাংলা লিখতে পারবেন]

এর ইন্টারফেস সম্পূর্ন বাংলায়। এর মেইন উইন্ডো স্ক্রিনশন নিচে দেয়া হলঃ

এতে আপনি উচ্চারন শুনার স্পিডও ঠিক করতে পারবেন সেটিং উইন্ডো থেকে।

এতে এখন পর্যন্ত যে ইউনিক সুবিধাটি যুক্ত করা হয়েছে তা হল কুইক সার্চ বা লাইট মোড বা বলতে পারেন অভিধানের ক্ষুদ্র রূপ।

এটি হচ্ছে একটি ছোট উইন্ডো; যেখান থেকে দ্রুত যে কোন শব্দ সার্চ করা যাবে। এতে হট-কী যুক্ত করা হয়েছে; ফলে আপনি হট-কী চাপ দিয়ে একে যখন ইচ্ছা আনতে এবং হাইড করতে পারবেন। হট-কীটি হলঃ Ctrl+F12. অভ্রের সাথে মিলিয়েই এটি রাখা হয়েছে। এর স্ক্রিন সট না হয় নাই দিলাম ডাউনলোড করুন, তাহলেই দেখতে পাবেন। (একটু লোভ দেখেচ্ছি আর কি ;))

এটি সিস্টেম ট্রেতে মিনিমাইজ করে রাখারও সুবিধা দেয়া হয়েছে। উপরের হট-কী সুবিধাটি সব সময় পেতে ডিকশনারিটি চালু করে তাকে মিনিমাইজ করে রাখতে পারেন। তাহলে যখনই প্রয়োজন হবে শুধু হট-কী চাপ দিবেন তাহলেই লাইট মোড চালু হবে।

লাইট মোডের আরেকটি ভয়ংকর সুবিধা হল এটি সয়ংক্রিয় ক্লিপবোর্ড থেকে শব্দ নিয়ে তার অর্থ বের করে দেবে। বুঝলেন না! ধরুন আপনি ওয়েব সাইট ব্রাউজ করছেন। হঠাৎ কোন একটি নতুন ইংরেজী শব্দ পেলেন, তখন Ctrl+F12 চাপ দিন তাহলে লাইট মোড চালু হবে। এবার অজানা শব্দটি সিলেক্ট করে কপি ( Ctrl + C) করুন। এবার ছোট উইন্ডোটিতে ক্লিক করুন। দেখুন সেখানে সয়ংক্রিয় আপনার কপি করা শব্দটি সার্চ বক্সে দেখা যাচ্ছে এবং তার অর্থ বা তার কাছাকাছি শব্দটির এবং তার অর্থ দেখাচ্ছে! এ মুহুর্তে উচ্চারন লাগবে! Space কী চাপ দিন; তাহলেই শুনতে পাবেন উচ্চারন।

এর সাথে স্বাধীন প্যাড নামে একটি অপশন যোগ করা হয়েছে; যাতে আপনি অভ্র বা বিজয় ছাড়াও বাংলা লিখতে পারবেন।

ট্রে আইকনে রাইট ক্লিক করেও সব সুবিধা চালু করতে পারবেন।

এতে Always on top অথ্যাৎ অভিধানের উইন্ডোকে সব উইন্ডোর উপরে রাখার সুবিধা দেয়া আছে।

আর আশা করি এখন এর ইউজার গাইড লাগবে না। কোন কিছু না বুঝলে সেটার উপর মাউস রাখলেই তার বর্ননা নিচে দেখতে পাবেন।

স্বাধীন বাংলা অভিধান চালাতে উইন্ডোজ এক্সপির জন্য ডটনেট ফ্রেমওয়ার্ক ২ (Dot Net Framework 2) লাগবে। তবে উইন্ডোজ সেভেনে তা লাগবে না। কারন উইন্ডোজ সেভেন-এ ডট নেট ফ্রেমওয়ার্ক ৩.৫ পর্যন্ত দেয়াই থাকে। ডটনেট ফ্রেমওয়ার্ক ২ এর ডাউনলোড লিঙ্কঃ ডাউনলোড

ডটনেট ফ্রেমওয়ার্ক ডাউনলোড

স্বাধীন বাংলা অভিধান মোটামুটি এ সুবিধা গুলোই এখন পর্যন্ত যুক্ত হয়েছে। আর কি কি আছে তা নিজেই ডাউনলোড করে ট্রাই করে দেখুন।

ডাউনলোড লিঙ্কঃ

মিডিয়া ফায়ার লিঙ্কঃ ডাউনলোড

সাইজঃ ৮ মেগাবাইট

এখন আপনাদের সহযোগীতা পেলে আশা করছি ২১শে ফেব্রুয়ারীতে এর বেটা ভার্সন ছাড়ব। তার মাঝখানে মাঝখানে টেস্টের জন্য আলফা-১, আলফা-২ ইত্যাদিও বের হতে পারে। এসবের খবর পেতে আইডব্লিউ অফিশিয়াল সাইট iwproducts.wordpress.com imaginativeworld.org এ গিয়ে ডান পাশে ‘ই-মেইরের মাধ্যমে আপডেট ও খবর’ অংশে আপনার ই-মেইল দিয়ে ‘Sign Me’ বাটনে ক্লিক করুন। এছাড়া আইডব্লিউ- এর ফেসবুক ফ্যান পেজ লাইক এবং টুইটার ফ্যানপেজ ফলো করতে পারেন।

আইডব্লিউ এর- ফেসবুক ফ্যানপেজঃ www.facebook.com/Imaginative.World.BD

আইডব্লিউ এর- টুইটার ফ্যানপেজঃ twitter.com/IW_Shohag

আর স্বাধীন বাংলা অভিধান সম্পর্কে মন্তব্য এখানেও দিতে পারেন; আবার চাইলে আলফা ভার্সনের অফিশিয়াল পোষ্ট ( এখানে ) এও আপনার মন্তব্য দিতে পারেন। তবে অফিশিয়াল পেজে দিলে ভাল হয়।

আপনারা আমাকে যে যে ভাবে সাহায্য করতে পারেনঃ

  •  স্বাধীন বাংলা অভিধান সম্পর্কে আপনাদের যে কোন ধরনের মতামত দিয়ে।
  • এটির বাগ খুজে বের করে।
  • আর সবচেয়ে সহজে এবং বড় যে কাজটা করতে পারেন সেটা হল স্বাধীন বাংলা অভিধান সবার মাঝে ছড়িয়ে দিয়ে। এটা আমার একার পক্ষে সম্ভব নয়। আপনারাই এটা করতে পারেন খুব সহযে।

এছাড়া আর অন্য কোন ভাবে আপনি আমাদের সাহায্য করতে পারলে সবসময় স্বাগতম।

শেষ কথা

ডিকশনারি নিয়ে ঘাটা ঘাটি করে যা দেখলাম প্রথম অফলাইন ডিকশনারি বোধয় টেকনোসিস ডিকশনারি। যা ১৯৯৯ এর দিকে বের হয়েছে। তারপর আরো ৫-৬ টি ডিকশনারি বের হয়েছে। অন্য দেশের কথা বলতে পারব না তবে আমাদের দেশের মানুষের মধ্যে যে দেশের প্রতি টান ভালবাসা যাই বলা হোক আছে তা ডিকশনারি নিয়ে ঘাটা ঘাটি করেই বুঝতে পেরেছি। মানুষের মধ্যে যদি দেশের প্রতি টান নাই থাকত তাহলে কেন ১৯৯৯ থেকে আমাদের দেশে কম্পিউটার ভিত্তিক ডিকশনারি তৈরি শুরু হয়; আর তারা তা নিয়ে ব্যবসাও করেনি সরাসরি ফ্রি হিসেবেই ছেড়ে দিয়েছে! বাংলা ভাষার জন্য যারা জীবন দিয়েছেন তাদের জীবন দেয়া আসলেই বৃথা যায়নি…

আজ এ পর্যন্ত রাখি। উপরের লেখাটি আমার নিজের জ্ঞান থেকে লেখা; সেখানে কোন তথ্য ভুল থাকলে তার জন্য আমি দুখিত; কোন ভুল পেলে কমেন্টে বলতে পারেন। ডিকশনারি বানাতে গেলে প্রোগ্রামিংয়ের চেয়ে কঠিন হচ্ছে ডাটাএন্ট্রি। এটির জন্যই এটাকে চ্যালেজ্ঞিং বলছি শুরুতে। এখন আপনাদের ফিডব্যাক এবং সাপোর্টই পারে আমি এবং আমার গ্রুপকে সাহস দিতে; এবং এ প্রোজেক্টে সব বাধা ভেঙ্গে এগিয়ে নিতে। আশা করি আপনাদের সম্পূর্ন সাপোর্ট পাব। আর ২১শে ফ্রেব্রুয়ারীতে বেটা ভার্সন বের করতে পারব; ইনশাল্লাহ…

-==========-
Md. Mahmudul Hasan (Shohag)
CEO of Imaginative World
Email: shohag_iw@yahoo.com

বিঃদ্রঃ আপনার যদি প্রোজেক্টটি ভাল লাগে তাহলে নিজ দায়িত্ব যে কোন ব্লগ বা ফোরামে লেখাটি পোষ্ট করতে পারবেন।

বিঃ দ্রঃ স্বাধীনের নতুন ভার্সন বের করা হয়েছে। নতুন ভার্সন সম্পর্কে জানতে এবং ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন

Advertisements

দেশী সফটঃ Text to Voice Converter 4.0 এবং IW Shutdown Timer 1.0 – শুধু আপনার জন্যই

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

প্রথমেই সবাই আমার সালাম এবং শুভেচ্ছা নিবেন। আজ আমার বানানো দুটো সফটওয়্যারের সাথে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দেব। একটি হল Text to Voice Converter এবং আরেকটা হল IW Shutdown Timer. সফট গুলোর ভার্সন যথাক্রমে 4.0 এবং 1.0 । ২য় সফটটা নতুন ডেভেলপ করেছি। খুশির কথা হল দুটোর নতুন ভার্সন আজ সবার জন্য উন্মুক্ত করছি। তা নিয়েই এই পোষ্ট।

সফটগুলোর বর্ননা দেয়ার আগে কিছু কথা বলে নেই। প্রত্যেক সফটওয়্যার ডেভেলপার গ্রুপের একটা নাম থাকে। সেরকম আমার গ্রুপের নাম ইমাজিনেটিভ ওয়াল্ড (Imaginative World)। এর অর্থ হতে পারে স্বপ্নীল জগৎ। আমি যখন সফট বানানো নিয়ে কাজ শুরু করিনি তখন এ নামটি দেই। তা আজ থেকে তিন-চার বছর আগের কথা। আসলে স্বপ্ন দেখতে বেশী পছন্দ করি তো তাই এ নাম দেয়া :)।

সফট বানানোর চেষ্টা শুরু করার পর প্রথম বানাই টেক্স টু ভয়েস কনভার্টার। এর ভার্সন 1 এবং ভার্সন 2 এর ব্যবহারকারী আমি নিজেই :)। কারন তখন আমার ইন্টারনেট ছিল না। নেট নেয়ার পর আমি এর ভার্সন 3 বের করি এবং ২০০৯ এর আগষ্টে এটি নেটে ছাড়ি। আমার টেক্স টু ভয়েস কনভার্টার সফটওয়্যারটি গুগলে “Text to Voice Converter 3.1” লিখে সার্চ দিলে খুজে পাবেন। সফটপিডিয়া (Softpedia.com), সিনেট (Cnet.com), ব্রাদারসফট (Brothersoft.com) সহ প্রায় সব ডাউনলোড সাইটেই এ সফটটি খুজলে পাবেন। 3.1 পুরনো ভার্সন। এখনো তাদের কাছে নতুন ভার্সন পাঠানো হয়নাই। অর্থ্যাৎ তাদের আগেই আপনারা নতুন ভার্সন পেয়ে যাচ্ছেন :)। টেক্স টু ভয়েস কনভার্টারের 3.1 ভার্সনের পর পর্যায়ক্রমেই আজ টেক্স টু ভয়েস কনভার্টার এর নতুন ভার্সন 4.0 এবং সাথে আমার নতুন সফট শাটডাউন টাইমার নেটে ছাড়ছি। আপনাদের দোয়া এবং সহায়তা পেলে আশা করি আরো সামনে এগিয়ে যেতে পারব।

অফিশিয়াল সাইটঃ iwproducts.wordpress.com

ফেসবুক ফ্যানপেজঃ এখানে ক্লিক করুন

অনেক কথা বললাম। এখন সফট গুলোর বর্ননা দেয়া যাক। নিচে বর্ননা এবং ডাউনলোড লিঙ্ক দিলাম। দেখুন সফটওয়্যার গুলো কাজে লাগে কিনা।

Text to Voice Converter 4.0

নাম দেখেই বুঝতে পারছেন এটি লেখাকে ভয়েসে রুপান্তরিত করে। ইন্টারনেটে সার্চ দিলে অনেক টেক্ট টু ভয়েস সফট পাবেন। তবে এটি অবশ্যই একটু ডিফ্রেন্ট। এটির বৈশিষ্ট্য গুলো দেখলেই বুঝবেন।

বৈশিষ্ট্যসমূহঃ

  • এতে টেক্স (.txt) ফাইল ওপেন করতে পারবেন।
  • কোন লেখাকে টেক্স (.txt) ফাইল হিসেবে সেভও করতে পারবেন নোটপ্যাডের মত।
  • লেখাকে ভয়েস রুপে শুনার সাথে সাথে তা সাউন্ড ফাইল (.wav) হিসেবে সেভ করতে পারবেন।
  • এর রয়েছে আকর্ষনীয় চারটি স্কিন।
  • এর সবচেয়ে আর্কনীয় জিনিসটি হল এর সাথে মাইক্রোসফটের ভয়েস ক্যারেকটার যুক্ত করা হয়েছে। এতে আপনি ভয়েস শোনার সময় এনিমেটেড ভয়েস ক্যারেকটার দেখতে পাবেন।
  • এতে মোট চারটি ভয়েস ক্যারেকটার যুক্ত করা হয়েছে
  • উইন্ডোজ ৭ সমর্থিত।

স্ক্রিনশটঃ

ডাউনলোডঃ

সাইজঃ ১৫.৪২ মেগাবাইট

Text to Voice Converter এর অফিশিয়াল পেজঃ এখানে ক্লিক করুন

এ সফটটি আপনার ছোট ভাই-বোনকে উপহার হিসেবে দিতে পারেন। ভয়েস ক্যারেকটার গুলো যখন লেখা পড়বে তখন তারা মজা পাবে + উচ্চারনও শিখতে পারবে। 🙂

IW Shutdown Timer 1.0

এটি আমার নতুন সফটওয়্যার। এর নাম আই-ডব্লিউ শাটডাউন টাইমার। এটির প্রথম ভার্সন মাত্র উন্মুক্ত করেছি। এটি আপনার পিসিকে নির্দিষ্ট সময়ে বন্ধ করতে সাহায্য করবে।

এখন প্রশ্ন হল কেন সফটটি ব্যবহার করবেন?

ধরুন আপনি ছোট কোন কাজে বাইরে যাচ্ছেন, কিছুক্ষন পর আবার ফিরবেন। তাই চাচ্ছেন কম্পিউটার বন্ধ না করতে। কিন্তু আপনার আসতে দেরিও হতে পারে। তাই তখন আপনি শাটডাউন টাইমার চালু করে দিতে পারেন। এতে নির্দিষ্ট সময়ে আপনি না এলেও কম্পিউটার সয়ংক্রিয় বন্ধ হবে। আবার ধরুন আপনি কোন কারনে বাইরে যাবেন। কম্পিউটারে বড় কোন কাজ যেমনঃ ভিডিও কনভার্ট, ডিফ্র্যাগমেন্ট ইত্যাদি করতে দিয়েছেন। কাজ শেষ হতে বেশী সময় লাগবে। আপনার সেই সফটওয়ারটিতে কাজ শেষ হলে সয়ংক্রিয় শাটডাউনের অপশন নেই। তখন আই-ডব্লিউ শাটডাউন টাইমার ব্যবহার করতে পারেন। আবার অনেকে রাতে ডাউনলোড দিয়ে ঘুমাতে চলে যান। তখন আপনি এ সফটওয়্যারটি ব্যবহার করতে পারেন। আনুমানিক কয়টাতে কাজ শেষ হতে পারে তা হিসাব করে টাইমার চালু করে দিন। বাস! আপনাকে আর কিছু করতে হবে না। সময় হলে টাইমার নিজে নিজে কম্পিউটার বন্ধ করে দেবে।

বৈশিষ্টসমূহঃ

  • আকর্ষনীয় ইউজার ইন্টারফেস।
  • সহজ ব্যবহার।
  • লাস্ট ওয়ার্নি উইন্ডো© ফাংশান। [বিস্তারিত জানতে এর ইউজার গাইড দেখুন]
  • এতে বাংলা এবং ইংরেজী দুই ভাষাতেই ইউজার গাইড সংযুক্ত আছে।
  • উইন্ডোজ ৭ সমর্থিত।

স্ক্রিনশটঃ

ডাউনলোডঃ

সাইজঃ ৩.৩৪ মেগাবাইট

IW Shutdown Timer এর অফিশিয়াল পেজঃ এখানে ক্লিক করুন

এটি এর প্রথম ভার্সন। সামনের ভার্সনে আরো আকর্ষনীয় ফংশন যুক্ত করার আশা আছে। এতে আরো কিকি যোগ করা যায় তা কমেন্টে বলতে পারেন।

শেষ কথা

সফটওয়্যার দুটো আপনাদের জন্যই তৈরি। এ সফটগুলোতে আর কি কি সংযোজন করা যায় তা কমেন্টে বলে আপনিও এর উন্নয়নে সহায়তা করতে পারেন। আজ এ পর্যন্তই। ধন্যবাদ।

দেশী সফটঃ টেক্স টু ভয়েস কনভার্টার ৩.১ (Text to Voice Converter 3.1)

Text to Voice Converter 3.1 ইংরেজী লেখাকে কথায় পরিবর্তন করার একটি প্রোগ্রাম। এটি বিভিন্ন ফ্রি সোর্স কোড এর সমন্বয়ে তৈরি করা হয়েছে। এটি বিনা মূল্যে ব্যবহারের করা যাবে। এতে লেখা কম্পিউটার পড়বে না। লেখা পড়ার জন্য আপনার সামনে অ্যানিমেটেড ক্যারেক্টার জিনি উপস্থিত হবে।
এটি ভিজুয়্যাল বেসিক ৬ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। এতে টেক্স (.txt) ফাইল ওপেন করতে পারবেন। চাইলে ভয়েস সংরক্ষন করতে পারবেন।

বর্তমান ভার্সনঃ ৩.১

উইন্ডোজ সাপোর্টঃ Windows XP, Windows Vista*, Windows 7*

নতুন বৈশিষ্ট্যঃ
১. “COMDLG32.OCX” ত্রুটি দুর করা হয়েছে।
২. ইন্টারফেস সম্পর্কিত একটি ত্রুটি দুর করা হয়েছে।
৩. সেটআপ পদ্ধতি পরিবর্তন করা হয়েছে।

স্ক্রিসসটঃ
TTVC 3ডাউনলোডঃ

লিঙ্ক ১ – জিড্ডু
লিঙ্ক ২ – সফটপিডিয়া

সাইজঃ ৮.৫ মেগা বাইট

* Text to Voice Converter এর বর্তমান ভার্সন Windows Vista এবং Windows 7 এ সমস্যা করতে পারে। তাই Windows Vista এবং Windows 7 ব্যবহারকারীরা নতুন ভার্সনের জন্য অপেক্ষা করুন।

আরো তথ্য জানতে ভিজিট করুনঃ iwproducts.wordpress.com