ওয়ার্ডপ্রেস.কম (WordPress.com) – টিউটোরিয়াল – ৩ – নতুন পোষ্ট করা (বিস্তারিত)

সবাই কেমন আছেন? আশা করি ভাল। আজকের পর্বে দেখাব ওয়ার্ডপ্রেসে.কম এ কিভাবে নতুন পোষ্ট করতে হয়। এর জন্য প্রথমে আপনার ব্লগের ড্যাশবোর্ডে যেতে হবে। ড্যাশবোর্ডে যাওয়ার জন্য অ্যাড্রেসবারে আপনার ব্লগের নামের শেষে “/wp-admin/” যোগ করে এন্টার দিন যেমনঃ https://iwwintricks.wordpress.com/wp-admin/ । তারপর যে পেজটি আসবে সেখানে ডান পাশে উপরে New Post নামে একটি বাটন আছে সেখানে ক্লিক করতে হবে।

তাহলে নতুন পোষ্ট করার জন্য একটি পেজ আসবে। সে পেজের প্রায় প্রত্যেকটি জিনিস নিয়ে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হল।

টাইটেল
পেজের শুরুতে নিচের মত একটি বক্স দেখা যাবে এখানে আপনার পোষ্টের টাইটেল লিখে দিতে হবে।

পোষ্ট লেখা

HTML অংশ
এর পরেই নিচের মত একটি বক্স দেখা যাবে। এখানে আপনার পোষ্টটি লিখতে হবে। একটি পোষ্ট করতে প্রধানত যে গুলো লাগে আমি শুধু সেগুলোর বর্ণনা দেব।

উপরের বক্সটির দুটি ভাগ আছে। একটি হল Visual এবং আরেকটি হল HTML । আপনার পোষ্ট লিখতে হবে HTML ভাগে এবং পোস্টটি দেখতে কেমন হবে তা দেখতে পাবেন Visual অংশে। Visual অংশেও পোষ্ট লেখা যায় তবে HTML অংশে লিখলে ভাল। এখন পোষ্ট লিখার জন্য প্রথমে HTML লেখাটিতে ক্লিক করুন। এবার ফাকা বক্সটিতে আপনি কি লিখতে চান লিখুন। বক্সের উপরে কিছু বাটন আছে এগুলোর মধ্যে প্রয়োজনীয় বাটন গুলোর কাজ নিচে দেয়া হল।
b – কোন লেখা সিলেক্ট করে এতে ক্লিক করলে লেখাটি বোল্ড (Bold) হবে।
I – কোন লেখা সিলেক্ট করে এতে ক্লিক করলে লেখাটি ইটালিক (Italic) অর্থাৎ বাকা হবে।
b-quote – কোন লেখা নিচের মত করতে চাইলে সে লেখাটি ক্লিক করে এ বাটনে ক্লিক করুন।

বাংলাদেশ

del – কোন লেখা এভাবে কেটে দিতে লেখাটি সিলেক্ট করে এ বাটনে ক্লিক করতে হবে।
img – আপনি যদি আপনার পোস্টে এমন ছবি দিতে চান যে পিকচারটি কোথাও আপলোড করা আছে তখন আপনি এ বাটনটি ক্লিক করে আপনার ঐ পিচারটির ঠিকানা লিখে OK তে ক্লিক করলে ঐ ছবিটি আপনার পোষ্টে যুক্ত হবে।
ul – আপনি যদি আপনার লেখাকে নিচের মত সাজাতে চান তাহলে লেখাটি সিলেক্ট করে এ বাটনে ক্লিক করুন।

    বাংলাদেশ

ol – আপনি যদি আপনার লেখাকে নিচের মত সাজাতে চান তাহলে লেখাটি সিলেক্ট করে এ বাটনে ক্লিক করুন।

    বাংলাদেশ

li – আপনি আপনার লেখাকে নিচের মত সাজাতে চান তাহলে লেখাটি সিলেক্ট করে এ বাটনে ক্লিক করুন।

  • বাংলাদেশ
  • code – আপনি আপনার লেখাকে নিচের মত সাজাতে চান তাহলে লেখাটি সিলেক্ট করে এ বাটনে ক্লিক করুন।
    বাংলাদেশ
    proofread – আপনার পোষ্ট যদি ইংরেজী হয় তাহলে আপনি এ বাটনে ক্লিক করে আপনার লেখাকে চেক করতে পারবেন। অর্থাৎ এটি হচ্ছে স্পেল চেকার।
    lookup – আপনি যদি কোন কিছু সম্পর্ক বিস্তারিত জানতে ইচ্ছে করে তাহলে ঐ শব্দটি সিলেক্ট করে এ বাটনে ক্লিক করুন। তাহলে ঐ জিনিস সম্পর্কে সব তথ্য আপনাকে দেখানো হবে। এটি শুধু ইংরেজী শব্দ সাপোর্ট করে। মোটামুটি এ বাটন গুলোই পোষ্ট তৈরি তে লাগবে।

    পিকচার আপলোড
    এবার দেখাব কিভাবে ছবি কম্পিউটার থেকে আপলোড করতে হয়। আপনার পোষ্টে ছবি ছাড়াও ভিডিও, শব্দ, ডকুমেন্ট ও jpg, jpeg, png, gif, pdf, doc, ppt, odt, pptx, docx, pps, ppsx, xls, xlsx ইত্যাদি ফাইল যুক্তি করতে পারবেন। সব গুলো আপলোড করা একই রকম। তাই আমি শুধু পিকচার আপলোড করা দেখাচ্ছি।
    পিকচার আপলোড করতে পোষ্ট লেখার বক্সের উপরে Upload/Insert এর পাশ থেকে এ চিহ্নটিতে ক্লিক করুন। তাহলে নিচের মত একটি উইন্ডো আসবে। Upload/Insert এর পাশে প্রথম বাটনটি পিকচারের জন্য এবং পরের গুলো যথাক্রমে ভিডিও, শব্দ, মিডিয়া ও পোল যোগ করার কাজে ব্যবহার করা হয়।

    এখানে Browse বাটনে ক্লিক করে কম্পিউটার থেকে আপনার ফাইলটি সিলেক্ট করে Open এ ক্লিক করুন। তারপর Upload বাটনে ক্লিক করুন। উপরের ছবিতে 4.2 MB used, 3.0 GB (99.9%) এর অর্থ হল আপনার জন্য বরাদ্দ করা ৩ গিগার মধ্যে ৪.২ মেগাবাইট ব্যবহার করা হয়েছে যা ৩ গিগাবাইটের ৯৯.৯ ভাগ। উপরের চিত্রে From URL এবং Media Library নামে আরো দুটি ট্যাব আছে। From URL ট্যাবে গিয়ে আপনি অন্য কোথাও আপলোড করেছেন এরকম ফাইল এখানে আপলোড করতে পারবেন। এর জন্য ঐ ফাইলে ঠিকানা বা URL টি লাগবে। আর Media Library তে আপনি বর্তমান পোষ্ট যত গুলো ফাইল আপলোড করেছেন সব গুলো দেখতে পাবেন। ফাইল আপলোড হয়ে গেলে বক্সের ভিতর নিচের পেজটি আসবে।

    এখানে আপনি আপনার ছবির ক্যাপশন দিতে পারেন। পিকচারের ক্যাপশন Caption বক্সে লিখতে হবে। আপনি চাইলে Alignment থেকে আপনি ছবিটিকে বামে (Left) ,ডানে (Right), মধ্যখানে (Center) বা কোথাও না (None) যে কোন একটি দেখিয়ে দিতে পারেন। Size থেকে আপনি আপনার পিকচারটির সাইজ ঠিক করে দিতে পারবেন। সব ঠিক করা শেষ হলে Insert into Post এ ক্লিক করলে ছবিটি আপনার পোষ্টে যুক্ত হবে।

    Visual অংশ
    এবার Visual অংশের কাজ দেখা যাক। আগেই বলেই Visual অংশে আপনার পোষ্টটি কেমন দেখাবে তা দেখতে পারবেন।

    এ অংশের কাজ সবার পারার কথা। কারন এখনে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের মত লেখার জন্য প্রয়োজনীয় টুল আছে। আর প্রায় সবাই কম-বেশী ওয়ার্ডের কাজ পারি। তাই এগুলো বর্ণনা দিলাম না। তবে প্রয়োজন হলে কমেন্টে বলতে পারেন। উপরের চিত্রে দুটি লাইনে টুল দেখতে পাচ্ছেন। শুরুতে একটি লাইনে টুল বক্স থাকবে। ২য় লাইনটি আনতে চিত্রে কালো করে দেয়া বাটনে ক্লিক করতে হবে। পোষ্টের প্রধান কাজ শেষ এখন অতিরিক্ত যে সব কাজ করতে হয় সেগুলো দেখাব।
    পোষ্ট বক্সের নিচে তিনটি বক্স আছে এগুলো হল Discussion, Author এবং Likes and Shares ।

    Discussion
    Discussion বক্সের প্রথম টিক চিহ্নটি অর্থাৎ Allow comments নামে টিক চিহ্নটি উঠিয়ে দিলে আপনার পোষ্টে কেউ মন্তব্য করতে পারবেনা। আপনি কোন পোস্টে মন্তব্য দেখতে না চাইলে Discussion বক্সের ভিতরে প্রথম টিক চিহ্নটি উঠিয়ে দিন।
    Author
    প্রায় সব ব্লগে একটি সুবিধা দেয়া থাকে। তা হলো একাধিক ব্যাক্তি এক ব্লগে লিখতে পারবে। আপনার ব্লগে যদি একাধিক লেখক থাকে তাহলে Author বক্স থেকে আপনি সিলেক্ট করে দিতে পারবেন আপনি কোন লেখক। একাধিক লেখক যোগ করার নিয়ম পরের অন্য কোন ওয়ার্ডপ্রেস.কম টিউটোরিয়ালে আলোচনা করা হবে।
    Likes and Shares
    ওয়ার্ডপ্রেস.কম এ পোস্ট করলে পোষ্টের নিচে শেয়ার বাটন যোগ করা যায়। আপনার পোষ্টে শেয়ার বাটন থাকবে কি থাকবে না তা Likes and Shares বক্স থেকে দেখিয়ে দিতে পারবেন। পোষ্টে শেয়ার বাটন যোগ করতে চাইলে বক্সটির ভিতরের দুটি চেক বক্সে টিক দিতে হবে। সাধারনত এ সুবিধাটি চালু নাও থাকতে পারে। চালু না থাকলে পরের টিউটোরিয়ালে লক্ষ রাখুন। পরের অন্য কোন ওয়ার্ডপ্রেস.কম টিউটোরিয়ালে এ নিয়ে আলোচনা করা হবে।

    Publish
    এবার পোষ্টের ডান পাশে যে বক্স গুলো আছে সেগুলোতে আসি। ডান পাশে প্রথমে Publish নামে একটি বক্স আছে। এখানের Save Draft বাটনে ক্লিক করলে আপনার পোষ্টটি ড্রাফট হিসেবে সেভ হবে, Preview বাটনে ক্লিক করলে আপনার পোষ্ট পাবলিশ করলে কেমন দেখাবে তা দেখতে পাবেন এবং Publish বাটনে ক্লিক করলে আপনার পোষ্টটি পাবলিশ হবে। এখানে আরো কিছু অপশন আছে। সেগুলো হল Status, Visibility, Publish এবং Publicize ।

    আপনার অপশন গুলো পরিবর্তন করতে চাইলে অপশন গুলোর পাশে যে Edit লেখা আছে সেগুলোতে ক্লিক করতে হবে।

    আপনি Status এর Edit এ ক্লিক করলে একটি ড্রপ ডাউন বক্স দেখতে পাবেন সেখানে দুটি আপশন আছে। সেগুলো হল Draft এবং Pending Review । Draft এ সিলেক্ট থাকলে এটি সয়ংক্রিয় ড্রাফটে সেভ হবে এবং Pending Review সিলেক্ট করলে এটি সম্ভবত আপনার ব্লগের অন্য লেখকদের Review এর জন্য সেভ হবে। যে কোন সেটিং পরিবর্তন করে অবশ্যই OK তে ক্লিক করতে হবে।
    Visibility এর Edit এ ক্লিক করলে কিকি অপশন আসবে তা উপরের চিত্র দেখে নিতে পারেন। Public সিলেক্ট করলে আপনার পোষ্টটি সবাই দেখতে পারবে। Stick this to the front page চেক বক্সটিতে টিক দিলে আপনার পোষ্টটি স্টিকি পোষ্ট হিসেবে সিলেক্ট হবে অর্থাৎ সব পোষ্টের উপরে এবং প্রথম পেজে এ পোষ্টটি সব সময় দেখা যাবে। পরে এটি অনচেক করলে আর স্টিকি পোষ্ট হিসেবে দেখাবে না। Password protected সিলেক্ট করে আপনার পোষ্টটিকে পাসওয়ার্ড প্রোটেক্ট করা যাবে এবং তখন শুধু মাত্র পাসওয়ার্ড দিলেই পোষ্টটি দেখা যাবে। Private সিলেক্ট করলে পোষ্টটি শুধু আপনি নিজেই দেখতে পারবেন।
    Publish অপশনে আপনি আপনার পোষ্টটির পোষ্ট হওয়ার তারিখ ও সময় পরিবর্তন করতে পারবেন।
    উপরের চিত্রে আরেকটি অপশন দেখতে পাচ্ছেন, তার নাম Publicize । এটির ব্যবহার পরের কোন ওয়ার্ডপ্রেস.কম টিউটোরিয়ালে আলোচনা করা হবে। কারন শুরুতে আপনি এ অপশনটি পাবেন না।
    Publish বাটনটি দিয়ে আপনি আপনার পোষ্টটি পাবলিশ করতে পারবেন। এর পাশে Move to Trash এ ক্লিক করে আপনার পোষ্টটি ট্র্যাশে মুভ করতে অর্থাৎ মুছে দিতে পারবেন। Trash কে আপনি Recycle Bin এর সাথে তুলনা করতে পারেন। আপনি কোন পোষ্ট বা কমেন্ট ডিলিট করলে Trash এ জমা হবে। আপনি চাইলে ট্র্যাশ থেকে পরে জমা হওয়া পোষ্ট এবং কমেন্ট মুছে দিতে পারেন।

    Categories
    Publish বক্সের পরেই যে বক্সটি দেখতে পাবেন তার নাম Categories । এখানে আপনি আপনার পোষ্টটি কোন বিভাগে রাখবেন তা দেখিয়ে দিতে পারবেন। আর শুরুতে শুধু একটি বিভাগ থাকবে। আপনাকে অন্য বিভাগ তৈরি করতে হবে। নতুন বিভাগ তৈরি করার জন্য Add New Category তে ক্লিক করুন।

    তাহলে নিচের মত একটা বক্স আসবে। সেখানে নতুন বিভাগের নাম লিখে Add New Category বাটনে ক্লিক করুন। এভাবে যত ইচ্ছা বিভাগ তৈরি করে নিতে পারেন। তারপর আপনার পোষ্টটি যে বিভাগে হবে সে বিভাগটির পাশে টিক চিহ্ন দিয়ে দেখিয়ে দিতে হবে।

    Post Tags
    Categories বক্সের পরে আছে Post Tags বক্স পাবেন। এখানে আপনার পোষ্টের ট্যাগ গুলো লিখতে হবে। ট্যাগ হল কিছু শব্দ যা দিয়ে যে কেউ সহজে আপনার পোষ্টটি খুজে পাবে এবং এতে কি কি আছে তা জানতে পারবে এবং একে বলা যায় আপনার পোষ্টের সারমর্ম। আপনি আমার এ পোষ্টটির ট্যাগ দেখলে আশা করি একটু ধারনা পাবেন।
    Add New Tag বক্সে ট্যাগ লিখতে হবে এবং প্রতিটি ট্যাগ লিখে একটা করে কমা ( , ) দিতে হবে তারপর Add এ ক্লিক করলেই ট্যাগ গুলো যোগ হবে।

    আর আপনি কোন ট্যাগ মুছতে চাইলে ঐ ট্যাগের পাশে একটি ক্রস চিহ্ন পাবেন সেখানে ক্লিক করলেই সে ট্যাগটি মুছে যাবে।

    মোটামুটি নতুন পোষ্ট করার জন্য এগুলো দরকার হয়। আর কোন কিছু জানার থাকলে কমেন্টে বলতে পারেন। আজ এতটুকুই। ভাল লাগলে কমেন্ট করবেন।

    ওয়ার্ডপ্রেস.কম টিউটোরিয়ালটি মোট ৯টি পোষ্ট এর সমন্বয়ে তৈরি করা হয়েছে। আপনাদের সুবিধার্থে টিউটোরিয়ালের সব পেজের লিঙ্ক নিচে দেয়া হলঃ

    7 thoughts on “ওয়ার্ডপ্রেস.কম (WordPress.com) – টিউটোরিয়াল – ৩ – নতুন পোষ্ট করা (বিস্তারিত)

    কিছু বলে যান

    Fill in your details below or click an icon to log in:

    WordPress.com Logo

    You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

    Twitter picture

    You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

    Facebook photo

    You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

    Google+ photo

    You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

    Connecting to %s